রবিবার, ৫ জুলাই ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «   সিঙ্গাপুরে আরও ১০ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত  » «   মিশিগানের হাসপাতালে আর রোগী রাখার জায়গা নেই  » «   ৩ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু  » «  

৬২ বছর ধরে স্ত্রীর সঙ্গে বোবা-বধিরের অভিনয়!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আমেরিকার কানেটিকাটের ওয়াটারবারি এলাকায় বিস্ময়কর এক ঘটনা ঘটেছে। স্ত্রীর কথা যাতে শুনতে না হয় এ কারণে টানা ৬২ বছর ধরে মূক-বধিরের অভিনয় করেছেন এক ব্যক্তি। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। সত্যিটা জানতে পেরে স্বামীর বিরুদ্ধে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা করেছেন এক স্ত্রী। ওয়ার্ল্ড নিউজ ডেইলির খবর।

জানা গেছে, ৮৪ বছর বয়সী ব্যারি ডাওসন গত ৬২ বছরে একটা কথাও বলেননি তার স্ত্রী ৮০ বছর বয়সী ডরোথির সঙ্গে। এ কারণে ডরোথি তাকে বোবা ও বধিরই ভাবতেন। স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যেতে ডরোথি ইশারার সাহায্যে কথা বলার ভাষা শিখেছিলেন। যদিও সেই ভাষা শিখতে ডরোথির দুই বছরেরও বেশি সময় লেগেছিল।

ডরোথি জানান, যখন তিনি ইশারায় কথা বলার ভাষা ভালভাবে রপ্ত করে ফেলেছিলেন তখনই তার স্বামী ইশারায় জবাব দেওয়া বন্ধ করে দেন।তিনি বলেন, ‘ব্যারি এত বছর ধরে বাড়িতে বোবা হয়ে প্রতারণা করেছেন।অথচ একটিবারের জন্য আমি সেটা বুঝতে পারিনি। সম্প্রতি ইউটিউবে তার একটা ভিডিও আমার চোখে পড়ে। যেখানে সে একটা বারে চ্যারিটির জন্য গান গাইছিল।ওটা দেখার পর আমার সব ভুল ভেঙে যায়।’

ব্যারি ও ডরোথি দম্পতির ৬ টি সন্তান রয়েছে। শুধু স্ত্রী-ই নন, ব্যারির সন্তান , নাতি-নাতনী সবাই এতদিন ব্যারিকে বোবাই মনে করতো।স্বামী ব্যারির এমন অমানবিক আচরণ কিছুতেই মানতে পারছেন না ডরোথি। বিবাহবিচ্ছেদের পাশাপাশি এ কারণে এতদিন ধরে এভাবে তার উপর মানসিক অত্যাচার ও চাপ তৈরি করার জন্য আর্থিক ক্ষতিপূরণও দাবী করেছেন তিনি।এ প্রসঙ্গে ব্যারি ডাওসনের আইনজীবী রবার্ট সানচেজ দাবী করেন, স্ত্রীকে ঠকানোর কোনও উদ্দেশ্য ছিল না তার মক্কেলের। তাহলে তাদের সংসার এত বছর টিকতে পারতো না।

ওই আইনজীবী বলেন,‘আমার মক্কেল শান্ত প্রকৃতির।বেশি কথা বলতে পছন্দ করেন না।অন্যদিকে তার স্ত্রী তাকে খুবই বিরক্ত করতেন।এ কারণে বাধ্য হয়েই তিনি বোবা সেজে ছিলেন সংসার বাঁচানোর জন্য’।আদালতে এখন তাদের বিবাহবিচ্ছেদ ও ক্ষতিপূরণের মামলাটি বিচারধীন আছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: