শনিবার, ২৮ মে ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «  

৬২ বছর ধরে স্ত্রীর সঙ্গে বোবা-বধিরের অভিনয়!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আমেরিকার কানেটিকাটের ওয়াটারবারি এলাকায় বিস্ময়কর এক ঘটনা ঘটেছে। স্ত্রীর কথা যাতে শুনতে না হয় এ কারণে টানা ৬২ বছর ধরে মূক-বধিরের অভিনয় করেছেন এক ব্যক্তি। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। সত্যিটা জানতে পেরে স্বামীর বিরুদ্ধে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা করেছেন এক স্ত্রী। ওয়ার্ল্ড নিউজ ডেইলির খবর।

জানা গেছে, ৮৪ বছর বয়সী ব্যারি ডাওসন গত ৬২ বছরে একটা কথাও বলেননি তার স্ত্রী ৮০ বছর বয়সী ডরোথির সঙ্গে। এ কারণে ডরোথি তাকে বোবা ও বধিরই ভাবতেন। স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ চালিয়ে যেতে ডরোথি ইশারার সাহায্যে কথা বলার ভাষা শিখেছিলেন। যদিও সেই ভাষা শিখতে ডরোথির দুই বছরেরও বেশি সময় লেগেছিল।

ডরোথি জানান, যখন তিনি ইশারায় কথা বলার ভাষা ভালভাবে রপ্ত করে ফেলেছিলেন তখনই তার স্বামী ইশারায় জবাব দেওয়া বন্ধ করে দেন।তিনি বলেন, ‘ব্যারি এত বছর ধরে বাড়িতে বোবা হয়ে প্রতারণা করেছেন।অথচ একটিবারের জন্য আমি সেটা বুঝতে পারিনি। সম্প্রতি ইউটিউবে তার একটা ভিডিও আমার চোখে পড়ে। যেখানে সে একটা বারে চ্যারিটির জন্য গান গাইছিল।ওটা দেখার পর আমার সব ভুল ভেঙে যায়।’

ব্যারি ও ডরোথি দম্পতির ৬ টি সন্তান রয়েছে। শুধু স্ত্রী-ই নন, ব্যারির সন্তান , নাতি-নাতনী সবাই এতদিন ব্যারিকে বোবাই মনে করতো।স্বামী ব্যারির এমন অমানবিক আচরণ কিছুতেই মানতে পারছেন না ডরোথি। বিবাহবিচ্ছেদের পাশাপাশি এ কারণে এতদিন ধরে এভাবে তার উপর মানসিক অত্যাচার ও চাপ তৈরি করার জন্য আর্থিক ক্ষতিপূরণও দাবী করেছেন তিনি।এ প্রসঙ্গে ব্যারি ডাওসনের আইনজীবী রবার্ট সানচেজ দাবী করেন, স্ত্রীকে ঠকানোর কোনও উদ্দেশ্য ছিল না তার মক্কেলের। তাহলে তাদের সংসার এত বছর টিকতে পারতো না।

ওই আইনজীবী বলেন,‘আমার মক্কেল শান্ত প্রকৃতির।বেশি কথা বলতে পছন্দ করেন না।অন্যদিকে তার স্ত্রী তাকে খুবই বিরক্ত করতেন।এ কারণে বাধ্য হয়েই তিনি বোবা সেজে ছিলেন সংসার বাঁচানোর জন্য’।আদালতে এখন তাদের বিবাহবিচ্ছেদ ও ক্ষতিপূরণের মামলাটি বিচারধীন আছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: