সোমবার, ১ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «  

২৯ মের মধ্যে নির্বাচনী হিসাব দিতে ইসির নির্দেশ



election1নিউজ ডেস্ক :: তিন সিটি নির্বাচনে সব প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের আগামী ২৯ মে তারিখের মধ্যে নির্বাচনী ব্যায়ের হিসেব দিতে নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি)। অন্যথায় আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে সর্বোচ্চ সাত বছরের জেল বা প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল হতে পারে।
জনা যায়, গেজেট প্রকাশের তারিখ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে সব প্রতিদ্বন্দ্বী (বিজয়ী ও বিজিত) প্রার্থীকে নির্বাচনী ব্যয়ের হিসাব রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে দাখিল করতে হবে। অর্থাৎ আগামী ২৯ মের মধ্যেই হিসাব জমা দিতে হবে। এ বিষয়ে ইসির পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে প্রার্থীদের সতর্ক করে চিঠি দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আবারও দেওয়া হবে।
নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা অনুযায়ী, মেয়র প্রার্থীরা ২০ লাখ ভোটার এলাকার জন্য সর্বোচ্চ দেড় লাখ এবং ২০ লাখের বেশি ভোটার এলাকার জন্য সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা ব্যক্তিগতভাবে খরচ করতে পারেন। এ ছাড়া নির্বাচনী ব্যয় হিসেবে ২০ লাখ ভোটারের জন্য সর্বোচ্চ ৩০ লাখ টাকা এবং ২০ লাখের বেশি ভোটার এলাকার জন্য সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা ব্যয় করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র প্রার্থীরা ব্যক্তিগত খরচসহ সর্বোচ্চ ৫৫ লাখ টাকার ব্যয়ের সুবিধা পেয়েছেন। আর ঢাকা দক্ষিণ সিটি ও চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনের মেয়র প্রার্থীরা পেয়েছেন সর্বোচ্চ ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ের সুবিধা।
অন্যদিকে, কাউন্সিলর প্রার্থীরা অনধিক ১৫ হাজার ভোটার এলাকার জন্য সর্বোচ্চ এক লাখ ১০ হাজার টাকা, ১৫ হাজার ১ থেকে ৩০ হাজার ভোটার এলাকার জন্য সর্বোচ্চ দুই লাখ ২০ হাজার টাকা, ৩০ হাজার এক থেকে ৫০ হাজার ভোটার এলাকার জন্য সার্বোচ্চ চার লাখ ৩০ হাজার টাকা এবং ৫০ হাজার এক থেকে তার বেশি ভোটার এলাকার জন্য সর্বোচ্চ ছয় লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয় করতে পারেন। সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিধিমালা অনুযায়ী, প্রার্থীকে প্রত্যেক দিনের ব্যয়ের সব বিলের কপি, ব্যাংক থেকে উত্তোলিত অথের্র হিসাব বিবরণী, ব্যক্তিগত খরচের মোট হিসাব প্রভৃতি রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দেওয়ার বিধান রয়েছে।
এ ক্ষেত্রে বিজয়ীদের গেজেট প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যেই হিসাব জমা দেওয়ার কাজ সম্পন্ন করতে হবে। রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রার্থীর ব্যয়ের হিসাবের একটি কপি ইসিতে জমা দেবেন। অন্যটি নিজের অফিসে এক বছর সংরক্ষণ করবেন। যা ১০০ টাকা পরিশোধ করে যেকোনো ব্যক্তি দেখতে পারবেন। কেউ চাইলে প্রতি পৃষ্ঠার জন্য ৫ টাকা পরিশোধ করে ব্যয়ের হিসাব সংগ্রহও করতে পা

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: