বুধবার, ২৯ জুন ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «  

‘শর্ত পূরণে ব্যর্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা’



4. nahidনিউজ ডেস্ক::
যে সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এখনও অনুমতির ন্যূনতম শর্ত পূরণ করতে পারেনি তাদের বিরুদ্ধে শিগগিরই আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। সোমবার সকালে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ৪র্থ সমাবর্তনে বক্তব্য রাখেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, দেশে এখন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা বেশি। বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা আন্তর্জাতিক মানে উন্নয়নের জন্য এসব বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ব্যবহার করা যায়। আশাকরি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ভবিষ্যত প্রজন্মকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।

তিনি আরও বলেন, যারা আজ শিক্ষা জীবনের সমাপ্তি করছে তাদের মনে রাখতে হবে আজ থেকে তাদের কর্মজীবন শুরু হচ্ছে। তবে তারা ইচ্ছা করলে আরও উচ্চ শিক্ষা নিতে পারে। আমি আশা করবো শিক্ষা জীবনে অর্জিত জ্ঞান ও মেধা দিয়ে এসব শিক্ষার্থী তাদের সৃজনশীলতা প্রয়োগ করে কর্মজীবনকে আলোকিত করে তুলবে এবং জাতি গঠনে অবদান রাখবে।

বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার জন্য আইন করা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমি আশা করবো সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সে আইন মেনে চলবে। আমাদের শিক্ষার মূল লক্ষ্য হলো আধুনিক বাংলাদেশ গড়ে তোলা। আজকের শিক্ষার্থীরা আধুনিক ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে ভবিষ্যতে নেতৃত্ব দেবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. আবদুল রবের সভাপতিত্বে সমাবর্তন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মো. এনায়েত উল্লাহ, সদস্যবৃন্দ, শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা ও ছাত্রছাত্রীগণ।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে মোট দুই হাজার ১৯ জন শিক্ষার্থীকে সনদ দেওয়া হয়। সর্বোচ্চ ফলাফলে জন্য ২ জনকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক, ৩ জনকে চেয়ারম্যান স্বর্ণপদক এবং ৪ জনকে ভাইস চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এছাড়া চেয়ারম্যান স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত প্রয়াত ছাত্র আলামিনের পরিবারকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ৩ লাখ টাকার অনুদান দেওয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: