বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

রাজাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের রোগীদের খাবার সরবরাহে অনিয়মের অভিযোগ



timthumbনিউজ ডেস্ক :: ঝালকাঠির রাজাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভর্তিকৃত রোগীদের সরকারি বরাদ্দে খাবার সরবরাহকারী ঠিকাদার মোঃ সজল মৃধার বিরুদ্ধে খাদ্য সরবরাহে পুকুর চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। খাদ্য তালিকা তৈরি করা হলেও সে অনুযায়ী খাবার দেয়া হচ্ছে না রোগীদের। এমনকি নবজাতক শিশুকে সকালে দুধ ও খিচুরি খেতে দেওয়ার কথা খাকলেও দেয়া হচ্ছে ২টি শক্ত রুটি ও ২টি কলা। শিশুদের খাদ্যের তালিকাই নেই খাবার মেন্যুতে। লুটপাট ও দুর্নীতিতে স্বাস্থ্যকেন্দ্রের টিএইচও মাহবুবুর রহমান বিরুদ্ধেও মোটা অঙ্কের মাসোহারা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এ অবস্থায় রোগীর খাদ্য লুটে নেয়া ঠিকাদার ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের কর্মকর্তারা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মাসে পর মাস নীরবে অসহায় রোগীদের খাদ্য লুটে খাচ্ছেন অভিযোগ ভুক্তভোগী রোগী ও তার স্বজনদের।
রাজাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, শিশুদের ৩ বেলায় দুধ ও খিচুরি খেতে দেওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু দেয়া হচ্ছে বড় রোগীদের খাবারই। যা খেতে হচ্ছে শিশু রোগীর অভিভাবকদের। প্রত্যেক বয়স্ক রোগীকে সকালে ২টি কলা, ২টি রুটি ও ২টি সিদ্ধ ডিম দেওয়ার কখা খাদ্য তালিকায় থাকলেও দেয়া হচ্ছে ২টি ছোট কলা ও ২টি ছোট রুটি। দুপুর ও রাতে সপ্তাহের বিভিন্ন দিনে বিভিন্ন খাবার মেন্যু থাকে। রোগী যেদিন ভর্তি হয় সেদিন না খেয়ে থাকতে হয়। পরের দিন থেকে তাকে খাবার দেয়া হয়। অথচ ভর্তি রেজিস্ট্রার অনুসাসে খাবারের হিসাব দেয়া হয়।
সরেজমিন রাজাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুক্রবারের দুপুর ও রাতের ৩৯ জন রোগীর খাদ্য তালিকায় মাথা পিছু রয়েছে ৩১৮ গ্রাম মুরগির গোসত, ডাল ৫০ গ্রাম ও বিভিন্ন সবজি খাওয়ানোর কথা থাকলেও খাদ্য সরবরাহকারী ঠিকাদার মুরগীর পরিবর্তে এনেছে পাঙ্গাস মাছ। কিন্তু যদি মুরগির পরিবর্তে মাছ খাওয়ানো হয়ে তবে, ৪৩৭.৩৮ গ্রাম প্রত্যেক রোগীকে খাওয়ানোর কথা রয়েছে। সে অনুয়ায়ী ৩৯ জন রোগীকে ১৭ কেজি মাছ খাওয়াতে হবে। কিন্তু ৩৯ জন রোগীর জন্য আনা হয়েছে মাত্র ৪ কেজি মাছ এবং ১ কেজি ৯৫ গ্রাম ডাল খাওয়ানোর কথা থাকলেও ৩৯ জন রোগীর জন্য আনা হয়েছে মাত্র ৪শ’ গ্রাম ডাল ।
অভিযোগ রয়েছে, এভাবে প্রতিদিনই সরকারের বরাদ্দকৃত লাখ লাখ টাকার বিনিময়ে সাধারন রোগীদের খাবার সরবরাহ নিয়ে চলছে পুকুর চুরি করা হচ্ছে। হাতেম মৃধা (৯৫), আয়নালি (৭০) ও রনি (২২) সহ চিকিৎসা নিতে ভর্তি হওয়া রোগীরা অভিযোগ করেন, ০৯ জানুয়ারি শুক্রবার সকালে ২টি কলা ও শক্ত ২টি রুটি দেয়া হচ্ছে যা খাওয়ার যোগ্য নয়। তাছাড়া সকালে ২টি করে ডিম খাওয়ানোর কথা শুনেছি, কিন্তু কখানো খাওয়ানো হয়নি। এছাড়া দুপুরে ও রাতে যে খাবার খাওয়ানো হয় তার মান খুব খারাপ। আর সবচেয়ে নির্মম রসিকতা চলছে প্রসূতি, নবজাতক ও শিশুরোগীদের খাদ্য সরবারহ নিয়ে।
এক শিশু রোগীর মা ইয়াসমিন বেগম অভিযোগ করেন, ৬ মাস বয়সী তার শিশু সন্তান মাফুজের অসুস্থতায় তিনি বাচ্চাকে নিয়ে কয়েক দিন হলো ভর্তি হয়েছেন রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। কিন্তু এখানে তার শিশু সন্তানের জন্য সকালে ২টি শক্ত রুটি ও ২টি কলা দেয়া হয়েছে কিন্তু কোন ৬ মাস বয়সী বাচ্চা কি এ খেতে পারে ?। জানা গেছে, স্বাস্থ্য কেন্দ্রে খাবার সরবরাহের মুল ঠিকাদার জেলার নলছিটির দুলাল তালুকদার এবং সাব কন্ট্রাক্টর স্থানীয় প্রভাবশালী বিএনপি কর্মী মোঃ সজল মৃধা।
ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তারা নিজেরা এককভাবে সারা জীবন খাদ্য সরবরাহ করবে এ জন্য কৌশল করে খাদ্যের বরাদ্দ বৃদ্ধির করার দাবিতে ঝালকাঠি আদালতে ঠিকাদার দুলাল একটি মামলা করেছেন এবং ওই মামলার জন্য নতুন করে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের খাদ্য সরবরাহের টেন্ডার হচ্ছে না। এ সুযোগ ও স্থানীয় প্রভাব খাটিয়ে রোগীসহ সকলকে জিম্মি করে রোগীদের খাবারের লক্ষ লক্ষ টাকা দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে হাতিয়ে নিচ্ছে।
এ বিষয়ে সাব-কন্ট্রাক্টর মোঃ সজল মৃধা জানান, দিন দিন দ্রব্য মূল্যের ঊর্ধ্বগতি থাকলেও পূর্বের বরাদ্দ অনুযায়ী বর্তমানেও লোকসান দিয়ে খাদ্য সরবরাহ করছি। তাই তালিকা অনুযায়ী সব সময় খাবার দেয়া সম্ভব হয় না।
এ বিষয়ে রাজাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রের টিএইচও মাহবুবুর রহমান বলেন, শিশুদের জন্য আলাদা কোন মেন্যু নেই, বড়দের খাবার দেয়া হয় তাদের। খাবারের বিষয়টি তিনি নিজেই তদারকি করেন বলেন এ চিকিৎসক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: