রবিবার, ১৩ জুন ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

রংপুরে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে, শঙ্কায় সেচ



5.rongpurনিউজ ডেস্ক::
নদীর স্বাভাবিক পানি প্রবাহ কমে যাওয়ায় রংপুর অঞ্চলে পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। ফলে কৃষি জমি সেচ সঙ্কটে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

রংপুর বিএডিসি (সেচ) অফিস সূত্রে জানা গেছে, গতবারের চেয়ে এবার এ অঞ্চলে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর আগাম নেমে যেতে শুরু করেছে। গত বছর এ সময় পানির স্তর ১৫ থেকে ২০ ফুট গভীরে থাকলেও এ বছর অনেক স্থানে পানির স্তর ২৬ থেকে ২৭ ফুট নিচে নেমে গেছে। যখন পানির প্রবাহ স্বাভাবিক থাকে তখন এ অঞ্চলে পানির স্তর ১২ ফুট নিচে পাওয়া যায়।

কৃষি বিভাগের ধারণা, অপরিকল্পিতভাবে যত্রতত্র গভীর ও অগভীর নলকূপের মাধ্যমে পানি উত্তোলন এবং তিস্তা, ধরলা, ঘাঘট, পদ্মা, যমুনাসহ বিভিন্ন নদ-নদীর স্বাভাবিক পানির প্রবাহ কমে যাওয়ায় এ অবস্থা তৈরি হয়েছে। এছাড়াও পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এ অঞ্চলের ভূ-প্রকৃতিতে দেখা দিয়েছে ব্যাপক পরিবর্তন।

পানি প্রবাহ কমে যাওয়ার কারণে রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় প্রতি বছর শুষ্ক মৌসুমে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ হাজার গভীর ও অগভীর নলকূপ দিয়ে ঠিকমতো পানি উঠে না। ফলে আসন্ন বোরোসহ অন্যান্য ফসলের প্রায় ৫ লাখ হেক্টর জমির চাষ নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়ছেন কৃষকরা।

রংপুর বিএডিসি (সেচ) অফিসের কর্মকর্তারা জানান, রংপুরের বদরগঞ্জ, পীরগঞ্জ ও নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে পানির স্তর সবচেয়ে বেশি নিচে নেমে গেছে। শুকনো মৌসুমে এসব এলাকায় ২৬ থেকে ৩৮ ফুট নিচে পানি পাওয়া যায়।

পানির স্তর ক্রমাগত নিম্নমুখী হওয়ায় রংপুর অঞ্চলে কৃষি উৎপাদনে মারাত্মক বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কৃষিবিদরা জানান, এ অঞ্চলের জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে ও অপরিকল্পিতভাবে ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলনের ফলে কৃষি উৎপাদন দিন দিন হুমকির মুখে পড়ছে।

প্রতি বছরই ভূগর্ভস্থ পানির স্তর ১ থেকে ২ ফুট করে নিচে নেমে যাচ্ছে। ফলে অগভীর সেচ পাম্পগুলো ১০ থেকে ১৫ ফুট গভীর গর্তে নামিয়ে সেচ কাজ চালানো হচ্ছে। তাতেও ঠিকমতো পানি না ওঠায় গভীর পাম্পগুলো ৫ থেকে ৬ ফুট গভীরে নামিয়ে পানি উত্তোলন করা হয়।

বর্ষা ও শীত মৌসুমে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এবং শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই নদ-নদী ও খাল-বিলগুলোতে পানি প্রবাহ কমে যাওয়ায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তর অস্বাভাবিকভাবে নিচে নেমে যাচ্ছে। তাছাড়া কৃষিকাজে ভূগর্ভস্থ পানি ব্যাপকভাবে ব্যবহারের ফলে ভূগর্ভের পানি সঞ্চয় ক্রমশই হ্রাস পাচ্ছে।

বিশেষ করে কৃষিকাজে ব্যবহৃত বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প, বিএডিসি ও পানাসি প্রকল্পের হাজার হাজার গভীর নলকূপের পাশাপাশি লাখ লাখ কৃষক ব্যক্তিগতভাবে গভীর ও অগভীর নলকূপ অপরিকল্পিতভাবে স্থাপনের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ পানি সেচ কাজে ব্যবহার করছে।

রংপুর বিএডিসি’র সেচ আঞ্চলিক কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী এস এম সাইদুল আলম জানান, অপরিকল্পিতভাবে পানি উত্তোলনের ফলে মৌসুমের পিক আওয়ারে ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যায়।

তিনি বলেন, বর্ষা মৌসুমে পানি সংরক্ষণের ব্যবস্থা করলে এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ পাওয়া যেতে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: