মঙ্গলবার, ২ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «  

মালয়েশিয়ায় গমনেচ্ছু ১৪ লাখ ৫০ হাজার কর্মীর ডাটাব্যাংক তৈরি



k-.moshar_84116নিউজ ডেস্ক :: প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, জি টু জি পদ্ধতিতে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর জন্য সারাদেশে ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে ১৪ লাখ ৫০ হাজার কর্মীর রেজিস্ট্রেশন করে ডাটাব্যাংক তৈরি করা হয়েছে।
তিনি আজ মঙ্গলবার সংসদে সরকারি দলের সদস্য মকবুল হোসেনের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, এ ডাটা ব্যাংক থেকে মালয়েশিয়া গমনে ইচ্ছুক কর্মীদের কম্পিউটারাইজড দ্বৈবচয়ন পদ্ধতিতে প্রাথমিকভাবে ৩৬ হাজার ৩৮ জনকে নির্বাচন করা হয়। এর মধ্যে মেডিকেল টেস্টে ফিট কর্মীদের ফিঙ্গার প্রিণ্ট গ্রহণ, ছবি এবং পাসপোর্ট স্ক্যান করে প্রত্যেক কর্মীর পূর্ণাঙ্গ বায়োডাটাসহ ১০ হাজার কর্মীর তালিকা মালয়েশিয়া সরকারের নিকট পাঠানো হয়।
মন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়া সরকারের নিকট থেকে ৭ হাজার ৬২২ জন কর্মীর ভিসা রেফারেন্স পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৬ হাজার ৮৯৭ জন কর্মী মালয়েশিয়া গমন করেছে। মালয়েশিয়া সরকারের চাহিদা পত্র পাওয়ার পর অবশিষ্ট কর্মীদের মালয়েশিয়া পাঠানো সম্ভব হবে।
প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী বলেন, চার দলীয় জোট সরকার এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে কতিপয় অর্থলিপ্সু রিক্রুটিং এজেন্সি ও দালাল অভিবাসী কর্মীদের কাছ থেকে অভিবাসনের জন্য ৩-৪ লাখ টাকা নিয়েছে। তাদের অনেকেই কাজ না পেয়ে সেখানে মানবেতর জীবনযাপন করেছে। যারা কাজ পেয়েছিল তারাও চুক্তিবদ্ধ সময়ের মধ্যে অভিবাসন বাবদ ব্যয়িত অর্থ উপার্জন করতে পারেনি, অর্থ-উপার্জনের জন্য সে দেশে অবৈধভাবে থেকে গেছে।
খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এ অবস্থায় মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি অভিবাসী কর্মী ব্যবস্থাপনায় মারাত্মক বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছিল এবং কর্মীদের মর্যাদা ও অধিকার সংরক্ষণ ইস্যুতে মালয়েশিয়া আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিল।
তিনি বলেন, উপর্যুক্ত প্রেক্ষাপটে ২০০৯ সালে সরকার পুনরায় মালয়েশিয়ায় অভিবাসী কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ গ্রহণ করে। অব্যাহত শ্রম কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় অবশেষে মালয়েশিয়া সরকার প্রায় ২ লাখ ৬৭ হাজার অবৈধ বাংলাদেশী কর্মীকে বৈধতা দিয়েছে। বর্তমানে জি টু জি ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছ ও নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে এবং স্বল্প ব্যয়ে শুধু প্লানটেশন সেক্টরে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী কর্মী পাঠানো হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন, জি টু জি প্রক্রিয়ায় কর্মীরা বর্তমানে নামমাত্র ২৪ হাজার টাকায় মালয়েশিয়ায় গমন করতে পারছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: