সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «  

ব্রিটেনে বৈধভাবে প্রবেশ ও বসবাসকারীদের জন্য সুখবর



ukনিউজ ডেস্ক::ব্রিটেনে বৈধভাবে প্রবেশ এবং বসবাসকারীদের জন্য যুগান্তকারী এক রায় প্রদান করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন কোর্ট। যেখানে ব্রিটিশ সরকার ক্রমাগতভাবেই ইমিগ্রেশন ব্যবস্থা কড়াকড়ি করতে বিভিন্ন রকম ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন।

শুক্রবার  লুক্সেমবার্গের ইউরোপীয়ান কোর্টের রেজিস্ট্রার সূত্রে এ রায় নিশ্চিত করা হয়েছে।

এ রায়ে বলা হয়েছে, ইউরোপের যে কোন দেশে লিগ্যালভাবে বসবাসকারী কিংবা ইউরোপের রেসিডেন্ট কার্ডধারীরা এ সুযোগ পাবেন। এছাড়া কার্ডধারীর সঙ্গে যদি তার পোষ্য স্ত্রী, স্বামী, ছেলে, মেয়ে পরিবার সদস্যদের ইউরোপে নিয়ে এসে সেখান থেকে রেসিডেন্ট কার্ড নিয়ে সরাসরি ব্রিটেনে বসবাসের জন্য আসতে পারবেন। তবে এতে কোন প্রকারের ভিসার দরকার হবেনা।

জানা যায়, সিয়ান ম্যাককার্থি নামের আইরিশ এবং ইউকের দ্বৈত নাগরিক হয়ে স্পেনে বসবাস করেন। তার স্ত্রী হেলেনা কলম্বিয়ার নাগরিক কিন্তু তিনি স্পেনে তার সঙ্গে থাকলেও ম্যাককার্থির সঙ্গে ব্রিটেনে এসে বসবাস করতে হলে প্রতিবারই তাকে ছয় মাসের টেম্পোরারি ভিসা নিয়ে আসতে হয়। তাই তিনি এর বিরুদ্ধে হোম অফিস থেকে সমাধান না পেয়ে ইংল্যান্ডের হাইকোর্টের নিকট দ্বারস্থ হন। পরে হাইকোর্ট সেই কেস ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে রেফার করেন।

ইউরোপিয়ান কোর্ট ম্যাককার্থির কেসের রায়ে বলেন, হেলেনা ইউকে বসবাস করার জন্য ভিসার দরকার নেই। ইউরোপীয়ান কোর্টের এই রায় একজন ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের বাইরের নাগরিকদের যে কোন সূত্রে ইউরোপের কোন দেশের রেসিডেন্ট পারমিট নিয়ে  সহজেই ব্রিটেনে প্রবেশ ও বসবাসের সুযোগ করে দিলো। ইউরোপে এটাকে আইনগতভাবে ফ্রিডম অব মুভমেন্টন্ট বলা হয়।

এদিকে এশিয়াসহ অন্যান্য দেশ থেকে অর্থ্যাৎ ইউরোপের যেকোন দেশ যেমন- ফ্রান্স, ইটালি, গ্রিস, নেদারল্যান্ডস ইত্যাদি দেশে এসে আইনি প্রক্রিয়ায় রেসিডেন্ট পারমিট কার্ড গ্রহণ করেছেন তারাও এই রায়ের ফলে তাদের পরিবার নিয়ে ইউরোপের সংশ্লিষ্ট দেশে এসে ব্রিটেনে থাকার বা প্রবেশের অধিকার পাবেন। তাকে বা তাদের জন্য আর নতুন করে ব্রিটেনের ভিসার দরকার হবেনা।

তবে এই রায়ের ফলে ব্রিটিশ বাংলাদেশিদের সবচেয়ে বেশি উপকৃত হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে যারা ব্রিটিশ হওয়া সত্ত্বেও নিজেদের স্ত্রী বা স্বামী বা পরিবার ব্রিটেনে নিয়ে যেতে নানা জটিলতা ও আপিলের কারণে দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা করছিলেন শুধুমাত্র তাদের জন্য কিংবা তারা এখন থেকে সহজেই ইউরোপে গিয়ে সেখানে পরিবার নিয়ে ইউরোপের রেসিডেন্ট পারমিট নিয়ে ব্রিটেনে তাদের পরিবার নেয়া সহজ হয়ে যাবে। যেহেতু তারা অলরেডি ব্রিটিশ। এরকম কথাই বললেন পূর্ব লন্ডনের একজন ইমিগ্রেশন সলিসিটর।

আবার ইউরোপের এমন অনেক দেশ আছে যেখানে ইমিগ্রেশন ব্যবস্থা শিথিল এবং সহজেই ভিসা পাওয়া যায়। বিশেষ করে পর্তুগাল, গ্রিস, স্পেন ইত্যাদি দেশ। সেই সব দেশে স্থায়ী বাসস্থানের পারমিশন সংগ্রহ করা যায় সহজেই। একবার সেইসব দেশের রেসিডেন্ট পারমিট সংগ্রহ করা গেলে অনায়াসে ব্রিটেনে স্থায়ী হওয়ার পথ সুগম হয়ে যাবে।

তবে ব্রিটেন অবশ্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের কোর্টের এই রায়ের ব্যাপারে বলছে চূড়ান্ত ডাইরেকশন ব্রিটেনের হাইকোর্ট থেকে আসবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: