বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

বউ কেনাবেচা হয় ছাগল, গরু ও উট দিয়ে



wife-shall-300x191আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: পৃথিবীতে নানা গোত্র, নানা ধর্মে যে কতরকম রহস্য আছে তা জানা মুশকিল। বিয়ে মানুষের জীবনে একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া, আমরা চিরকালই দেখে এসেছি বিয়ে মানে অনেক আনন্দ, উৎসব ইত্যাদি, অথচ পৃথিবীর নানা দেশে এই বিয়ে নিয়েই রয়েছে নানা রকমের ব্যাতিক্রমি আয়োজন ।
এ যেন বউ কেনাবেচার বিরাট হাট! ২০টি ছাগল, তিনটি উট ও ১০টি গরুর বিনিময়ে বউ পাওয়া যায় এখানে। এ জন্য মেয়ের বাবার সঙ্গে অনেক দরকষাকষি করতে হয় বর পক্ষের। অনেক ক্ষেত্রে বর তাদের উপজাতীয় জুয়েলার্সও দিয়ে থাকেন মেয়েকে। কেনিয়ায় উপজাতীয় এলাকায় এভাবেই একটি ছেলের হাতে মেয়েকে তুলে দেন বাবা, যেটাকে তারা বিবাহ বলে থাকেন।
কেনিয়ার উপজাতীয় এলাকায় বিশেষ করে পাকট সম্প্রদায়ের বাবারা নিজের প্রাণপ্রিয় মেয়েকে একটি ছেলে হাতে তুলে দেন পশুর বিনিময়ে।
বিয়ের একমাস আগে কনেকে একটি নির্জন জায়গায় বিচ্ছিন্ন রাখা হয়। এরপর বাবাদের সঙ্গে বর পক্ষের চলে ব্যাপক দরকষাকষি। যে বেশি পশু ও জুয়েলার্স দিতে পারবে, তার হাতেই মেয়েকে তুলে দেন বাবা।
মেয়ের অজান্তেই চলে বিবাহের এ আয়োজন। অনেকেই জানেন না, তাদের কার হাতে তুলে দিচ্ছেন বাবা। মেয়েরা বিয়ের কথা শুনলে বাড়ি থেকে পালাতে পারে এমন আশঙ্কার কারণে প্রায়ই এ বিষয়টি তাদের কাছে গোপন রাখে পরিবার।
প্রথা অনুযায়ী সর্বশেষ দিনে ও রাতে গরু বলি দেয় গ্রামের পুরুষেরা। গরুর হৃদয়ে বর্শা দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করা হয়। এরপর সেগুলো রান্না করে রাতভর চলে খাওয়া-দাওয়ার উৎসব। যদিও ওই অনুষ্ঠানে নারীদের প্রবেশে বাধা রয়েছে। অনেক সময় বিশেষ কিছু নিয়ম অনুসরণ করলে নারীদের সেখানে প্রবেশের অনুমিত দেওয়া হয়।
কেনিয়ার বারিনগো কাউন্টির ম্যারিগেট শহরের ৫০ কিলোমিটারের অদূরে জঙ্গলের ভেতর বিশেষ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কেনিয়ার আইনের বাল্যবিবাহ নিষিদ্ধ থাকলেও ১৪ বছরের মেয়েদের বিয়ে দেওয়ার রীতি প্রচলিত রয়েছে দেশটির উপজাতীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে।
বিয়ের দিন ব্যাপক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে যুবক-যবতীরা একসঙ্গে নাচে, আনন্দ করে। বাড়ি সাজানো হয় নানা রঙে।
বিয়ের দিন কনের চুল কেটে দেওয়া হয়। পরানো হয় নিজেদের ঐতিহ্যের পোশাক। কেউ বাবার বাড়ি থেকে যেতে না চাইলে জোর করে ধরে নিয়ে যায় বর পক্ষ। কান্নাকাটির রোল পড়ে যায় সে সময়। কিন্তু মেয়ের পরিবার এ ব্যাপারে বর পক্ষকে সহায়তা করে থাকেন।
তবে এ রকম বিয়েকে অমানবিক হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে প্রতিবেদনে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: