মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

টেস্টে ফেল করে এসএসসি দেওয়ার সুযোগ বাতিল!



14. sscনিউজ ডেস্ক::
নির্বাচনী (টেস্ট) পরীক্ষায় পাশ না করে, শুধু ৭০ শতাংশ ক্লাসের উপস্থিতি দিয়েই এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার নিশ্চয়তা থাকছে না। গত ৩ মার্চ এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করলেও তা বাতিল করতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, শিক্ষামন্ত্রী ঢাকার বাইরে আছেন। বুধবারই (১১ মার্চ) ফেরার কথা। বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) বা আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকেই এ প্রজ্ঞাপন বাতিল করা হবে। গত ৩ মার্চ জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, এখন থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য শিক্ষার্থীদের নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হলেও চলবে।

এক্ষেত্রে অনুত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের শুধু সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাসে ৭০ শতাংশ উপস্থিতি থাকলেই চলবে। শিক্ষা সচিব মো. নজরুল ইসলাম খান স্বাক্ষরিত এক পরিপত্রে এ নির্দেশনা জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আর এ পরিপত্র জারির পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে শুরু হয় নানা আলোচনা-সমালোচনা। অনেক মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকেও এ সিদ্ধান্তের সমালোচনা করা হয় বলে সূত্র জানায়।

রাজধানীর একটি সেরা স্কুলের প্রধান শিক্ষক বলেন, মন্ত্রণালয়ের এ ধরনের যুক্তি অপরিণামদর্শী। যোগ্য প্রার্থীদের বাছাই করতেই এসএসসি পরীক্ষার আগে নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়া হয়। ‘শিক্ষার্থীরা যদি জানে ৭০ শতাংশ উপস্থিতি থাকলেই পরীক্ষা দেওয়া যাবে, তবে নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশ নেবে কেন? পরীক্ষাটি মূল্যহীন হয়ে পড়বে,’—যোগ করেন তিনি। এ ধরনের সরকারি সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতেই নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন এই শিক্ষক। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সমালোচনার বিষয়ে মন্ত্রণালয় অবগত আছে। শিগগিরই বিষয়টি পরিবর্তন করা হবে। পরিপত্রে ভাষাগত ত্রুটির কারণে বিভিন্ন অর্থ বের করছেন অনেকে।

পরিপত্রে বলা হয়, কোনো কোনো বিদ্যালয় শতভাগ পাস কিংবা ভালো ফলাফল দেখানোর জন্য নির্বাচনী পরীক্ষায় এক বা একাধিক বিষয়ে অকৃতকার্যতার অজুহাতে পরীক্ষার্থী ছাঁটাই করা হয়। অপরপক্ষে অসুস্থতা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দুর্ঘটনা এবং বিভিন্ন অযাচিত ঘটনার জন্যও কিছু শিক্ষার্থী পাবলিক পরীক্ষার পূর্বে নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারে না। উপরোক্ত অবস্থা নিরসনকল্পে নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে অনুত্তীর্ণ কিন্তু ৭০ শতাংশ ক্লাসে উপস্থিত ছিল এমন শিক্ষার্থীদের পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করতে সকল বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয়, কারিগরি বিদ্যালয় এবং মাদরাসা প্রধানগণকে নির্দেশনা দেয়া হলো।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বুধবার বিকেলে শিক্ষা সচিব মো. নজরুল ইসলাম খান বলেন, পরিপত্র বাতিল করার যুক্তি দেখি না। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ মনে করলে, সেটি ভিন্ন বিষয়। তিনি বলেন, কিছু বিদ্যালয় শতভাগ পাস দেখানোর জন্য নির্বাচনী পরীক্ষায় অকৃতকার্যতার অজুহাতে পরীক্ষার্থী ছাঁটাই করে। অথচ বিভিন্ন কারণে কিছু শিক্ষার্থী নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে না পারলে সে দায় কিন্তু শিক্ষার্থীর নয়।

শিক্ষাবিদসহ বিভিন্ন মহল থেকে সমালোচনা প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী ‍নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘দেখেন কী হয়। আমি কি বলবো!’ এর বেশি মন্তব্য করতে রাজি হননি শিক্ষামন্ত্রী।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: