সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

কামারুজ্জামানের ছেলের চ্যালেঞ্জ



kamaruzzaman-sonনিউজ ডেস্ক: শেরপুরের সোহাগপুরের ঘটনার সাথে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সুপ্রিমকোর্টে দন্ড প্রপ্ত কামারুজ্জামানের কোন সম্পর্ক নাই বলে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন তার ছেলে হাসান ইকবাল।
সোমবার সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে কামারুজ্জামানকে নির্দোষ দাবি করে চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করেন তার ছেলে। ওই সময় তিনি বলেন, সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগের রায় ন্যায়ভস্ট্র।
এ সময় কামারুজ্জামানের স্ত্রী, পাঁচ ছেলে এক মেয়ে, কামারুজ্জামানের ভাই ও শ্যালক উপস্থিত ছিলেন।
হাসান ইকবাল বলেন, আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি। সোহাগপুরের ঘটনার সাথে আমার বাবার দূরতম সম্পর্ক নাই। তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার।
সংবাদ সম্মেলনে হাসান ইকবাল বলেন, আমার বাবা সম্পূর্ণ নির্দোষ। অন্যয়ভাবে সাজানো অভিযোগে তাকে ফাসিঁর দণ্ড দেয়া হয়েছে। আমার বাবা কখনো সোহাগপুরে যাননি। এমনকি রাষ্ট্রপক্ষের দাখিল করা ফর্মাল চার্জেও সোহাগপুর গণহত্যার সময় সেখানে তিনি উপস্থিত ছিলেন মর্মে কোন অভিযোগ নাই।
তিনি বলেন, এই মামলায় মূল সাক্ষীর তালিকায় ৪৬ জনের নাম ছিল। তাদেগর মধ্যে ১০ জন সাক্ষী ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্য দেয়ার পর নতুন করে তিনজন মহিলাকে অতিরিক্ত সাক্ষী করে তাদের মাধ্যমে এসব অভিযোগে আনা হয়েছে।
হাসান ইকবাল বলেন, স্বাধীনতার সময় সাক্ষীরা আমার বাবাকে চিনতেনও না। তাদের কথায় আমার বাবার বিরুদ্ধে রায় হয়েছে। এই রায় ন্যায় ভ্রস্ট।
তিনি বলেন, ২০১১ সালে সোহাগপুরের গণহত্যা নিয়ে সাংবাদিক মামুন-উর রশিদ উক্ত এলাকা পরিদর্শন করে সোহাগপুরের বিধবা কন্যারা’ নামে একটি বই প্রকাশ করেন। সেখানে অনেক সাক্ষীর সাক্ষাৎকার আছে। তাতে কেউ একবারের জন্যও বলেনি যে আমার বাবা এ ঘটনায় যুক্ত ছিলেন।
এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান তালুকদারের ২০১১ সালের অনুপম প্রকাশনী ‘মুক্তিযুদ্ধে নালিতাবাড়ী’ বইতেও আমার বাবার সম্পৃক্ততার কথা বলা হয়নি।
সম্পূর্ণ রাজনৈতিক কারনে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এই মামলায় আমার বাবাকে জড়ানো হয়েছে।
রিভ্যিউ আবেদনের সুযোগ দিলে তার পিতা খালাস পাবেন বলে আশা করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: