শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

এনআইএ খুঁজে হন্যে, তিনি আরবি পড়াচ্ছেন



1. niaনিউজ ডেস্ক: খাগড়াগড় বিস্ফোরণের পরে যখন এনআইএ এবং এনএসজি চারদিকে তল্লাশি করে বেড়াচ্ছে, তখনো তিনি নিয়মিত ক্লাস নিয়ে গিয়েছেন।

সেই শান্ত মিতবাক আরবির শিক্ষক যে জঙ্গি হতে পারেন, তা ভাবতেই পারছে না তালিত গৌড়েশ্বর হাইস্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। যেমন ভাবতে পারছে না কালিয়াচকে পুরাতন ১৬ মাইল গ্রামের অনেকেই।

অথচ শনিবারই কলকাতার নগর দায়রা আদালতে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ) দাবি করল, বর্ধমানে খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কাণ্ডে ধৃত শিক্ষক জিয়াউল হক জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি)-র সদস্য।
সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। বিস্ফোরণের পরে জেএমবি নেতাদের সঙ্গে তিনি একাধিকবার ফোনে কথাও বলেছেন। নগর আদালতের মুখ্য বিচারক মহম্মদ মুমতাজ খান তাকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত এনআইএ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। ওই দিনই খাগড়াগড় বিস্ফোরণে আহত আব্দুল হাকিমকেও আদালতে হাজির করানো হবে।

তালিতের স্কুলটির হাজিরা খাতা বলছে, জিয়াউল পারতপক্ষে ছুটি নিতেন না। ২০১১ সালের ৯ জুলাই কাজে যোগ দেয়ার পর পাওনা ছুটির বাইরে কখনো তিনি তিন-চারের দিন বেশি টানা ছুটি নেননি।

তদন্তে নেমে এনআইএ জেনেছে, শিমুলিয়া ও মকিমনগরের মাদ্রাসায় অল্পবয়সী ছেলেমেয়েদের তিনি জঙ্গি ভাবধারায় উদ্বুদ্ধ করতেন।

কোনোদিন সন্দেহজনক কিছু চোখে পড়েনি বলেই হয়তো হতবাক হয়ে গিয়েছেন গৌড়েশ্বর হাইস্কুলের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা।

এ দিনই এনআইএ-র ডিএসপি প্রেমবীর সিংহ লিখিতভাবে প্রধান শিক্ষককে চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানান। প্রধান শিক্ষক মানসকুমার হাজরার কথায়, ‘আমার কাছে পুরোটাই বিস্ময়কর। কিছুতেই মেলাতে পারছি না।’

কেমন মানুষ জিয়াউল?
স্কুলে সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণীতে যারা জিয়াউলের কাছে ঐচ্ছিক আরবি পড়ত, সেই ছাত্রছাত্রীরা জানাচ্ছে, পড়ানোয় স্যারের কোনো খামতি ছিল না। মাঝে-মধ্যে তিনি ল্যাপটপ এনে ছবি-কার্টুন এই সব দেখিয়ে পড়াতেন। তাতে তারা মজাই পেত।

সহকর্মীরা জানান, জিয়াউল একটু বেশি ধর্মভীরু। প্রতি শুক্রবার কাছেই মসজিদে নমাজ পড়তে যেতেন তিনি। স্কুলের কাছে নমাজের জন্য বরাদ্দ সময় বাড়ানোর আর্জিও জানিয়েছেন কয়েকবার। কিন্তু সহকর্মীরা তার আচরণে কখনো সন্দেহজনক কিছু দেখেননি।

মাস আটেক আগে খাগড়াগড়ে এক অবসরপ্রাপ্ত পুলিশকর্মীর বাড়িতে ভাড়া থাকতে শুরু করেন জিয়াউল। এ দিন সকালে এনআইএ গিয়ে সেখানে তল্লাশি চালায়। কিছু বই বাজেয়াপ্ত করে বাড়িটি সিল করে দেয় তারা।

পড়শিরা জানান, জিয়াউল তাঁদের সঙ্গে কমই কথা বলতেন। তবে বাড়ির মধ্যে কাউকে ঢুকতে দিতেন না। দরজা-জানলাও বেশির ভাগ সময়ে বন্ধ থাকত। ওই বাড়ি থেকে দেড়শো মিটারের মধ্যে খাগড়াগড়ের সেই বিস্ফোরণস্থল।

এনআইএ সূত্রের দাবি, ওই সময়ে পুকুরপাড়ে দাঁড়িয়ে থেকে তিনি ফোনে এনআইএ-র গতিবিধি জেএমবিকে জানাতেন।

মুর্শিদাবাদের কালিয়াচকে পুরাতন ১৬ মাইল গ্রামের বাসিন্দারা কিন্তু বিশ্বাস করতে পারছেন না, জিয়াউল জঙ্গি হতে পারেন। তাদের পরিবার ‘শিক্ষিত’ বলেই পরিচিত।

জিয়াউলের বাবা মহম্মহ ফাইম শেখ স্থানীয় নাসিরটোলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। মেজো ভাই সাইদ জালালপুর হাইস্কুলে আরবি শিক্ষক। তারা দু’জনেই এ দিন স্কুলে গিয়েছেন। ছোট ভাই আবদুল্লা কালিয়াচক কলেজের ছাত্র।

জিয়াউল কয়েকটি অনুমোদনহীন মাদ্রাসায় জিহাদের মন্ত্র দিতে যেতেন বলে তদন্তে জানা গেলেও তিনি নিজে কিন্তু মাদ্রাসায় পড়েননি। ২০০৩-এ রাজনগর হাইস্কুল থেকে মাধ্যমিক, সুজাপুর নয়মৌজা শুভানিয়া হাইস্কুল থেকে উচ্চ মাধ্যমিক, বৈষ্ণবনগরের সাউথ মালদহ কলেজ থেকে আরবি অনার্স, গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। তার পরে স্কুল সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষা দিয়ে স্কুলে চাকরি। কিন্তু ছোট থেকেই যে তিনি ধর্মগোঁড়া ছিলেন তা গ্রামের অনেকেই বলছেন।

গ্রামের রাজীব শেখ বলেন, ‘আমি জিয়াউলের সঙ্গে এক স্কুলে মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়েছি। ছোটবেলা থেকেই এলাকার কোথাও ধর্মীয় জালসা হলেই ও গিয়ে পরিচালনা করতো। তার কট্টর মনোভাব নিয়ে অনেকের ঝামেলাও হয়েছে।’

রাজীব বলেন, ‘এক ইসলাম ধর্মপ্রচারকের বক্তব্য ক্যাসেটবন্দি করে ও গ্রামের লোকদের শোনাত। তবে চাকরি হওয়া ইস্তক গ্রামে কম আসত। আমাদের সঙ্গে তেমন মেলামেশাও করত না।’

জিয়াউলের ভাই সাইদ শিক্ষকতার সঙ্গে হার্ডওয়্যার ব্যবসাও করেন। বিস্ফোরণের কয়েক দিন পরে তার কাছেই জিয়াউল নিজের ল্যাপটপ রেখে আসেন। শুক্রবার এনআইএ-র অফিসারেরা গেলে সাইদ তার বন্ধু তথা ব্যবসার সঙ্গী এনামুল হকের দোকান থেকে সেটি এনে দেন।

গ্রামের এক মোবাইলের সিমকার্ড ব্যবসায়ী জানান, পুজোর সময়ে বাড়ি এসে জিয়াউল তার কাছ থেকে সিমকার্ড কিনেছিলেন। তবে তার জন্য ভোটার কার্ড দিয়েছিলেন। ল্যাপটপ ছাড়াও কিছু সিডি ও প্রচুর কাগজপত্র বাজেয়াপ্ত করে এনআইএ চলে যায়।

সূত্র: আনন্দবাজার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: