বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «   সিঙ্গাপুরে আরও ১০ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত  » «   মিশিগানের হাসপাতালে আর রোগী রাখার জায়গা নেই  » «   ৩ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু  » «  

আখেরি মোনাজাতে বিশ্ব শান্তি কামনা



monajoat-1421523920-300x191নিউজ ডেস্ক :: বিশ্ব মুসলিমের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনার মধ্য দিয়ে শেষ হলো ৫০ তম বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্বের আখেরি মোনাজাত।
রোববার বেলা ১১টা ২২ মিনিটে মোনাজাত শুরু হয়। শেষ হয় ১১টা ৫৫ মিনিটে। মোনাজাত পরিচালনা করছেন ভারতের দিল্লি জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা সা’দ।
এই সময়ে তুরাগ তীরে এক অভিনব দৃশ্যের অবতারণা হয়। আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো ইজতেমা ময়দান। মোনাজাতে বিশ্ব মুসলিমের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের জন্যও দোয়া করা হয়।
২য় পর্বের আখেরি মোনাজাতের আগে চলে হেদায়েতি বয়ান। এ বয়ানে তাবলিগ জামাতের ৬টি উসুল নিয়ে আলোচনা করা হয়।
বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু হয়েছিল ৯ জানুয়ারি। ১১ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে তা শেষ হয়। দ্বিতীয় ও শেষ পর্বের বিশ্ব ইজতেমা শুরু হয় ১৬ জানুয়ারি।
বিশ্বের ৮০টি দেশের ৪হাজার ৫৭৪ জন বিদেশি মেহমানসহ কয়েক লাখ মানুষ এই আখেরি মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন। কয়েকটি স্যাটেলাইট টেলিভিশনে সরাসরি মোনাজাত সম্প্রচারের ফলে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ পরোক্ষভাবে মোনাজাতে শরিক হতে পেরেছেন।
এদিকে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে ইজতেমা ময়দানসহ আশপাশ এলাকায় নেয়া হয়েছে কড়া নিরাপত্তা। ইজতেমা মাঠে প্রবেশের ১৭টি পথে ৫ স্তরের নিরাপত্তা তল্লাশি পেরিয়ে মুসল্লিদের মাঠে প্রবেশ করতে হয়। প্যান্ডেলের ভেতর ও বাইরে মুসল্লিবেশে রয়েছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রায় ১ হাজার সদস্য। ৫টি স্তরে নিরাপত্তা দিচ্ছেন আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা। ইজতেমা ময়দানের সব প্রবেশপথে ক্লোজসার্কিট ক্যামেরা ও বিভিন্ন পয়েন্টে পর্যবেক্ষণ টাওয়ার স্থাপন করা হয়েছে।
ইজতেমার দ্বিতীয়পর্বের আখেরি মোনাজাতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, টঙ্গী-কালীগঞ্জ সড়ক, দুপুর পর্যন্ত যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এছাড়া যান চলাচল বন্ধের কারণে টঙ্গী ও আশপাশ এলাকায় কল-কারখানার মালিক কর্তৃপক্ষ বিশ্ব ইজতেমার জন্য ১ দিন কারখানা বন্ধ দিয়েছেন।
১৬ জানুয়ারি শুক্রবার আম বয়ান দিয়ে শুরু হয় দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা। হরতাল-অবরোধে প্রথম দিনে মুসুল্লিদের উপস্থিতি তুলনামূলক কম থাকলেও দ্বিতীয় দিন শনিবারেই জনসমুদ্রে পরিণত হয় টঙ্গীর তুরাগ তীরের ইজতেমা ময়দান ও এর আশপাশের এলাকা।
এরমধ্যে শনিবার সকালে হয়ে যাওয়া বৃষ্টিতে বিছানা ও কাপড় চোপড় ভিজে যায় অনেকের। মাঘের শীতে বেশ দুর্ভোগ পোহাতে হয় তাদের। দুর্ভোগ উপেক্ষা করেই মুসুল্লিরা যে যেভাবে পারছেন সেখানেই ইবাদতে ব্যস্ত সময় পার করেন তারা।
টঙ্গীর ইজতেমা ময়দান ছাড়াও আশপাশে প্যান্ডেলে জায়গা না পেয়ে নিজ উদ্যোগেই পলিথিন টানিয়ে ইজতেমায় শরিক হয়েছেন মুসল্লিরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: