বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

আইফেল টাওয়ারের নির্মাণ ইতিহাস



431202আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: ধাতুর এই খাঁচা তৈরির সময় তার কদরই বোঝে নি প্যারিসের মানুষ৷ অথচ আজ আইফেল টাওয়ার শহরের প্রধান আকর্ষণ হিসেবে গোটা বিশ্বে পরিচিত৷ ২০১২ সালে এই টাওয়ারটি পূর্ণ করে ১২৫ বছর। ১৮৮৭ সালের ২৬শে জানুয়ারি আইফেল টাওয়ার চালু হয়েছিল৷ শহরের মানুষ বিরক্ত হয়ে বলেছিলেন, প্যারিসের সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে গেল৷ বিশিষ্ট জনরা গর্জে উঠেছিলেন, ‘এ যেন এক দৈত্য – শহরের লজ্জা’৷ এমনকি কমিটি গড়ে রীতিমত ‘আইফেল টাওয়ার হটাও’ আন্দোলন শুরু হয়ে গিয়েছিল৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ফরাসি সেনাবাহিনী নাৎসিদের অপব্যবহার রুখতে টাওয়ারের অংশবিশেষ ভেঙে ফেলার কথা ভেবেছিল৷ তারপর হিটলার স্বয়ং আইফেল টাওয়ার ধ্বংস করার নির্দেশ দিয়েছিলেন, যদিও তা অমান্য করা হয়েছিল৷
ফরাসি বিপ্লবের ১০০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সেসময়ে শহরে বসেছিল আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীর আসর৷ এই ঘটনাকে স্মরণীয় করে তুলতে গড়ে তোলা হয়েছিল এই টাওয়ার৷ ১৮৮৭ থেকে ১৮৮৯ – দুই বছর লেগেছিল টাওয়ারটি তৈরি করতে৷ এত কাণ্ড করে তৈরি করে চট করে আবার তা খুলে না নিয়ে পরিকল্পনা ছিল, মেলা শেষ হওয়ার ২০ বছর পর সেটি আবার খুলে নেওয়া হবে৷
কিন্তু সেই পরিকল্পনা আর কার্যকর হয় নি৷ কারণ ততদিনে আইফেল টাওয়ারের খ্যাতি গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে৷ দলে দলে পর্যটকরা আসতে শুরু করেছেন এই ‘আয়রন লেডি’কে দেখতে, যা ততদিনে আইফেল টাওয়ারের ডাকনাম হয়ে গেছে৷ আশেপাশের দোকানে বিক্রি হচ্ছে আইফেল টাওয়ারের ক্ষুদ্র সংস্করণ৷ কবি, সাহিত্যিক, গায়ক, চলচ্চিত্র নির্মাতারা এই টাওয়ার দেখে প্রেরণা পেতে শুরু করেছেন৷ এই সব কাণ্ডকারখানা দেখে প্যারিসের মানুষ অবাক৷ অবাক স্বয়ং গুস্তাভ আইফেল’ও, যিনি এই টাওয়ারের স্থপতি৷ উদ্বোধনের দিন ফরাসি জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার সময় তিনি ভাবতেই পারেন নি, যে তাঁর এই সৃষ্টি অমর হয়ে থাকবে৷
মনে রাখতে হবে, সেই যুগে প্রায় ৩০০ মিটার লম্বা এই টাওয়ার ছিল গোটা বিশ্বে মানুষের তৈরি সবচেয়ে উঁচু কোনো সৃষ্টি৷ ১৯৫৭ সালে একটি অ্যান্টেনা বসানোর পর উচ্চতা দাঁড়িয়েছে ৩২৪ মিটার৷ ৭,৩০০ টন ইস্পাত দিয়ে তৈরি হয়েছে এই টাওয়ার৷ টেলিগ্রাফ ও রেডিও সংকেত পাঠানোর কাজেও ব্যবহার করা হয়েছে এই টাওয়ারকে৷ ১৯২১ সালে ফ্রান্সের প্রথম পাবলিক রেডিও সম্প্রচারও শুরু হয়েছে সেখান থেকে৷ এখন সূর্যাস্তের পর থেকে প্রতি ঘণ্টায় ৫ মিনিট করে আলোর সাজে সেজে ওঠে ‘তুর দিফেল’৷ প্রায় ২০,০০০ বাল্বের সেই আলোর ছটা অপরূপ এক দৃশ্য উপহার দেয়৷ আইফেল টাওয়ারকে নতুন করে সাজানোর পরিকল্পনার অভাব নেই৷ পর্যটকদের ঢলও কমার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না৷- তথ্যসূত্র: ডয়েচ ভ্যালে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: