সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

৩৮ টাকার পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়!



নিউজ ডেস্ক:: পেঁয়াজের বাজারের অস্থিরতা কাটছেই না। রাজধানীর নিত্যপণ্যের বাজারে আগের মতো পাওয়া যাচ্ছে না দেশি পেঁয়াজ। যৎসামান্য যা পাওয়া যায় বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। গতকাল সোমবার প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ কারওয়ান বাজারে বিক্রি হয়েছে ২০০ থেকে ২২০ টাকায়।

পেঁয়াজের দাম দুঃসহনীয়। ২৬০ টাকা কেজিতে দেশি পেঁয়াজ খেয়েছে মানুষ। এখন দেশি পেঁয়াজ ২৪০ থেকে ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে ভারত, মিয়ানমার, চিনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ এখনও বিক্রি হচ্ছে বাজারভেদে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়। অথচ এই পেঁয়াজই বিদেশ থেকে আমদানি হয়েছে গড়ে মাত্র ৩৮ টাকায়!

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের তথ্যমতে, গত আগস্ট থেকে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত সাড়ে তিন মাসের বেশি সময়ে ১ হাজার টনের বেশি পেঁয়াজ আমদানি করেছে ৪৭ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান। তারা প্রায় ৪০০ কোটি টাকা খরচে ১ লাখ ৪ হাজার ৫৫৮ টন, অর্থাৎ ১০ কোটি ৪৫ লাখ ৫৮ হাজার কেজি পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। অর্থাৎ প্রতি কেজি পেঁয়াজ আমদানিতে তাদের খরচ হয়েছে গড়ে ৩৮ টাকা ২৬ পয়সা।

এদিকে, পেঁয়াজের মূল্য কারসাজির সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করতে ৪৭ আমদানিকারককে তলব করেছে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতর। তাদের ১৩ জন গতকাল কাকরাইলের শুল্ক গোয়েন্দা অফিসে হাজির হন। রবিবার রাত থেকে বেড়ে গেছে সব ধরনের পেঁয়াজের দাম। ফলে নাগালের বাইরে এ পেঁয়াজ।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মিসর থেকে জাহাজে আমদানি করা পেঁয়াজ আগামী ৭ থেকে ৮ দিনের মধ্যে দেশের বিভিন্ন বাজারে আসবে। এ পেঁয়াজ খুচরা বাজারে সর্বোচ্চ ৬০ টাকায় বিক্রি হবে। এছাড়া ডিসেম্বরের প্রথমেই বাজারে দেশি নতুন পেঁয়াজ আসতে শুরু করবে। সব মিলিয়ে আগামী ৮ থেকে ১০ দিনের মধ্যে পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক হবে।

৪৭ আমদানিকারককে তলব: পেঁয়াজের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি ও দর কারসাজি সম্পর্কে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরতে শুল্ক গোয়েন্দা অফিসে গতকাল হাজির হয়েছেন ১৩ আমদানিকারক। কাকরাইলের শুল্ক গোয়েন্দা অফিসে তারা হাজির হন। ১৩ আমদানিকারক তাদের বক্তব্য তুলে ধরেন। এর আগে বৃহস্পতিবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) গোয়েন্দা অধিদফতর থেকে তাদের তলব করা হয়। গতকাল ও আজ পেঁয়াজ আমদানিকারকদের সশরীরে সংস্থাটির কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়। ৪৭ আমদানিকারকের বাকিরা আজ নিজেদের অবস্থান তুলে ধরবেন।

জানা গেছে, আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রির বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানতে ৪৭ আমদানিকারককে শুল্ক গোয়েন্দা অফিসে তলব করা হয়েছে। আমদানিকারকদের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের কাছে থাকা তথ্য অনুযায়ী দাম বৃদ্ধির প্রকৃত কারণ যাচাই করা হবে। এরপর দায়ীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গতকাল শুনানিতে আসা ১০ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান হলো- রাজশাহীর এমএস ফুল মোহাম্মদ ট্রেডার্স, চাঁপাইনবাবগঞ্জের একতা শস্য ভাণ্ডার, এমএস সাজ্জাদ এন্টারপ্রাইজ, নূর এন্টারপ্রাইজ, এমএস আ এম অ্যাগ্রো, টিএম এন্টারপ্রাইজ ও বিএইচ ট্রেডিং অ্যান্ড কোম্পানি, সাতক্ষীরার এমএস দীপা এন্টারপ্রাইজ প্রপার্টিজ, নওগাঁর জগদীশ চন্দ্র রায় এবং বগুড়ার এমএস সুমাইয়া এন্টারপ্রাইজ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: