রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

২৬ বছরের বাধা ‍কাটল, সচল আদালত



7. courtনিউজ ডেস্ক::
২৬ বছর পর হরতালের মধ্যে চালু হয়েছে চট্টগ্রাম আদালত। সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বুধবার দুপুর ২টা থেকে আইনজীবীরা আদালতের কার্যক্রমে যোগ দিয়েছেন। এর ফলে প্রায় দুই মাস ধরে চট্টগ্রাম আদালতে চলা অচলাবস্থার অবসান হল। বিচারপ্রার্থী, আইনজীবীদের পদচারণায় আবারও মুখর হয়ে উঠেছে আদালত প্রাঙ্গণ।

হরতালে আদালত চালু হওয়ায় আসামিদের রিমান্ড ও জামিন শুনানি এবং সাক্ষ্যগ্রহণের পথ সুগম হল। এছাড়া কারাগারে বন্দিদের উপচে পড়া ভিড়ও কমে আসবে বলে মনে করছেন কারা কর্মকর্তারা।

মঙ্গলবার চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সঙ্গে সর্বদলীয় আইনজীবীদের বৈঠকে ২৬ বছর আগের সিদ্ধান্ত বাতিল করে হরতালেও আদালতের কার্যক্রমে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে পূর্ণদিবস নয়, হরতালে দুপুর ২টার পর থেকে আদালতের কার্যক্রমে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মুজিবুল হক বলেন, সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা আদালতে যাচ্ছি। সিদ্ধান্ত নেয়ার পরই চিঠি দিয়ে তা বিচারকদের জানানো হয়েছে। এছাড়া সব আইনজীবীদেরও নোটিশ দেয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে যে কোন রাজনৈতিক হরতালে আমাদের এ সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে।

গত ১৮ জানুয়ারি থেকে বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের হরতাল শুরুর পর কার্যত অচল হয়ে পড়ে চট্টগ্রাম আদালত। আইনজীবীদের রুটি-রুজির পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় প্রতিদিন মিছিল-সমাবেশ করে তাদের একাংশ এ সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু এতে বাধ সাধেন বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীদের একাংশ।

এ অবস্থায় গত ১ মার্চ থেকে ২৬ বছরের নিয়ম ভেঙে এজলাসে বসতে শুরু করেন বিচারকরা। বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা বাধা দিলেও প্রতিদিন এজলাসে বসে আদেশ সরবরাহ শুরু করেন বিচারকরা। এতে হরতালে আইনজীবীদের অংশগ্রহণের দাবি আরও জোরালো হয়ে উঠে।

এর আগে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ২৫২ জন সাধারণ আইনজীবী হরতালে আদালত চালু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে তলবি সভা আহ্বানের দাবি জানিয়ে গঠনতন্ত্রের ৪৬ ধারা মোতাবেক সমিতির সাধারণ সম্পাদককে চিঠি দেন। কিন্তু সাধারণ সম্পাদক তিনদিনের মধ্যে তলবি সভা আহ্বান না করায় সোমবার (২ মার্চ) আইনজীবীরা নিজেরাই তলবি সভা শুরু করেন। খবর পেয়ে বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা মিছিল করে গিয়ে সেই সভা পণ্ড করে দেন।

এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি অবস্থান সৃষ্টির পর মঙ্গলবার (৩ মার্চ) সকাল ১০টার দিকে নতুন আদালত ভবনের মূল ফটকের সামনে অবস্থান নেন বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা। সরকারপন্থী আইনজীবীরা আদালতের কার্যক্রম চালুর দাবিতে মিছিল নিয়ে সেখানে এলে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে দু’পক্ষের আইনজীবীরা ধাক্কাধাক্কি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় লিপ্ত হন। এতে বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীরা পিছু হটে মূল ফটক থেকে সরে যান।

প্রায় এক ঘণ্টা ধরে পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ও উত্তেজনার পর দু’পক্ষের জ্যেষ্ঠ্য আইনজীবী ও পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। উভয় গ্রুপ মিছিল নিয়ে ঘটনাস্থল ছেড়ে যান।

এরপর দুপুর ১টার দিকে জেলা আইনজীবী সমিতির সঙ্গে তাদের মিলনায়তনে মূলতবি বৈঠকে বসেন সর্বদলীয় আইনজীবীরা। বৈঠকে হরতালে দুপুর ২টা থেকে আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: