শুক্রবার, ৭ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

হাতবিহীন জেসিকা কক্স বিমান চালান পা দিয়ে



নিউজ ডেস্ক:: যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের জেসিকা কক্স জন্ম থেকেই হাতবিহীন। কিন্তু তিনি তার দুই পা ব্যবহার করে অনায়াসেই প্লেন চালাতে পারেন। এখন তিনি বিমানচালনায় সারা বিশ্বের নারীদের অনুপ্রেরণা। কক্সের কাছে তার ডান পা দিয়ে ইয়োক এবং বাম পা দিয়ে থ্রটল নিয়ন্ত্রণ করা কোনো ব্যাপারই না। সিএনএন

কক্স বলেন, অন্য পাইলটরা যা তাদের হাত দিয়ে করেন, আমি তা করি আমার দুই পা দিয়ে। আমার জন্মের পর যখন চিকিৎসক আমাকে নিয়ে এসে বাবা-মাকে বলেন, আপনাদের সন্তানের কোনো হাত নেই, তখন বাবা-মা খুব অবাক পান।

আমার মা প্রচণ্ড কষ্ট পান কারণ তার গর্ভাবস্থা স্বাভাবিক ছিলো। কক্স জানান, তিনি কখনো হীনমন্যতায় ভোগেননি। তিনি নিজের সাহস ও শক্তির সম্পূর্ণ কৃতিত্ব দেন তার পরিবারকে। তিনি বলেন, তারা আমাকে সাহসী হতে এবং ঘরের বাইরে চলাফেরার স্বাধীনতা দিতে সাহায্য করেছে।

একসময় এয়ারপ্লেনে উড়তে ভয় পেতেন কক্স। তিনি বলেন, শিশু বয়সে ফান বাণিজ্যিক ফ্লাইটে উঠতাম প্রতিবারই সিটে বসেই ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করতাম। মনে হতো কেউ আগলে রাখলে আমি স্বস্তিবোধ করতাম।

কক্স বলেন, একটি ছোট প্লেন এক ফ্লাইট সবকিছু পালটে দেয়। প্লেনটির পাইলট আমাকে নিয়ন্ত্রণ কক্ষে নিয়ে এসে সেটি চালাতে বলেন। আমার মনে হয়, যেকোনো পরিস্থিতিতে ভয় না পেয়ে তা মোকাবেলা করা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

কক্স ইউনিভার্সিটি অব অ্যারিজোনা থেকে স্নাতক পাসের পর ২০১৫ পাইলট হওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেন। কিন্তু বিষয়টা মোটেও সহজ ছিল না। তাই একজন ডেডিকেটেড ফ্লাইট ইন্সট্রাক্টর খোঁজার প্রয়োজন পড়ে তার।

কক্স বলেন, আমি অনেক ফ্লাইট ইন্সট্রাক্টর ও কন্ট্রিবিউটরের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছি। নানা ভুল-ভ্রান্তির মধ্য দিয়ে বিমানচালনায় সিদ্ধহস্ত হতে প্রায় তিন বছর লেগে যায় আমার। সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমার সামর্থ্য অনুযায়ী একটি প্লেন খোঁজা।

কক্সকে ২০০৮ সালে লাইট স্পোর্ট এয়ারক্র্যাফট এরকুপ চালানোর অনুমতি দেয় ফেডারেল অ্যাভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন। তিনি বলেন, অনেক প্রশ্ন ছিলো। অনেক উদ্বেগ ছিলো। এটি সম্ভব হবে কিনা তা নিয়েও অনেক সন্দেহ ছিলো।

একটি স্বাভাবিক শৈশব পেয়েছেন কক্স। তিনি সরকারি স্কুলে যোগ দেন এবং নিয়মিত পাঠক্রম বহির্ভূত কর্মকাণ্ডেই বেশি সম্পৃক্ত থাকতেন। কক্স বলেন, প্রতিদিন স্কুল ছুটির পর আমি নাচ, সাঁতার ও মার্শাল আর্ট টায়েকোনডো ও স্কাউটিংয়ে যোগ দিতাম।

কিন্তু দুই হাত না থাকায়, তাকে বেশিরভাগ সময় ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখা হতো। তিনি বলেন, আমি স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করতাম কিন্তু আমাকে প্রায় বলা হতো যে আমি পারবো না। কারণ আমার দুই হাত নেই। এরপর কক্স কৃত্রিম হাত ব্যবহার করা শেখেন কিন্তু তিনি কখনও এতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেননি। তিনি বলেন, আমি শুরু থেকেই এর ওপর নির্ভরশীল হতে চাইনি। আমি ভাবতাম যে কৃত্রিম হাতের চেয়ে আমার পা অনেক ভালো।

এখন কক্স শুধু একজন পাইলট নন, তিনি একজন স্বীকৃত স্কুবা ড্রাইভার, টায়েকোনডোতে একজন থার্ড-ডিগ্রি ব্যাক বেল্ট। এছাড়া একজন মোটিভেশনাল স্পিকার হিসেবে তিনি ২০টির বেশি দেশে ভ্রমণ করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: