রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

সেনাবাহিনী নিয়ে মান্নার কথোপকথন সাবেক ছাত্রলীগ নেতার সঙ্গে?



mmনিউজ ডেস্ক :: নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না ২২ জানুয়ারি সেনাবাহিনী নিয়ে ভাইবারে অজ্ঞাত কার সঙ্গে কথা বলেছিলেন তার জট খুলতে শুরু করেছে। অজ্ঞাত ওই প্রবাসী এতদিন অজ্ঞাত থাকলেও এবার তার নাম জানা গেছে। দ্বিতীয় দফায় ১০ দিনের রিমান্ডে আনার পর মান্না ওই অজ্ঞাত ব্যক্তি সম্পর্কে মুখ খুলতে শুরু করেছেন বলে জানিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ(ডিবি)।

ডিবি’র প্রধান যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন,‘মাহমুদুর রহমান মান্না জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন ২২ জানুয়ারি সেনাবাহিনী নিয়ে তিনি শাহাদাত নামে সাবেক এক ছাত্রলীগ নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন। শাহাদাত এখন অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী এক ব্যবসায়ী। তবে মালয়েশিয়া তার সেকেন্ড হোম। শাহদাতের মালয়েশিয়ায় ব্যবসা এবং বাড়ি আছে।’

তবে রিমান্ডে মান্না দাবি করেছেন, ‘শাহাদাতের সঙ্গে তাঁর কখনোই দেখা হয়নি। টেলিফোনেই পরিচয়। ২২ জানুয়ারির আগেও তিনি শাহাদাতের সঙ্গে কথা বলেছেন। প্রথম কথা হয় তিন বছর আগে।’ জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানিয়েছেন, শাহাদাত নিজ থেকেই তাঁকে সেনাবাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ এবং ওয়ান ইলেভেনের সঙ্গে তার জড়িত থাকার কথা জানায়। মান্না ডিবিকে জানিয়েছেন, শাহাদাতের বাড়ি কেরানীগঞ্জে। ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও ৯০ এর দশকে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে ভাল পদ পেতে ব্যর্থ হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতি ছেড়ে দেয়। এরপর সে দেশের বাইরে চলে যায় এবং সেখানে ব্যবসা শুরু করে। মান্নার দাবি, কয়েকবার কথা বলার সময় তিনি শাহাদাতের কাছ থেকেই এসব তথ্য জেনেছেন।

যুগ্ম কমিশনার জানান,‘ মান্নার ভাষ্যমতে সাবেক এই ছাত্রলীগ নেতা তাঁর সঙ্গে ২২ জানুয়ারি অষ্ট্রেলিয়া থেকে ভাইবারে কথা বলেন। তবে সে মালয়েশিয়াও আসে মাঝে মাঝে।’ মনিরুল ইসলাম জানান, ‘শাহাদাতের ব্যাপারে মান্না এখনো পরিপূর্ণ তথ্য দেয়নি। আমাদের মনে হয় সে কিছু তথ্য লুকোচ্ছে। আমরা তাঁকে নিবিঢ় জিজ্ঞাসাবাদ করে পুরো তথ্য জানার চেষ্টা করছি। আর সে ৯০ এর দশকের সাবেক ছাত্রলীগ নেতার যে নাম বলছে তাও আমরা যাচাই বাছাই করে দেখছি।’ তিনি জানান, ‘এই ঘটনায় সংবাদ মাধ্যমে মশিউর রহমান মামুন নামে যে একজন ব্যবসায়ীকে আটকের কথা বলা হয়েছে তা সঠিক নয়। এই মামলায় এখন পর্যন্ত মাহমুদুর মান্না ছাড়া আর কেউ আটক নেই।’

এদিকে ঢাকায় মশিউর রহমান মামুনের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা কথা বলতে রাজি হননি। মামুনের বড় বোন বলেন, ‘এই বিষয়টি নিয়ে আমরা সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে চাই না।’ মামুন আটক হয়েছেন কী না বা তিনি এই ঘটনায় জাড়িত কীনা জানতে চাইলে তিনি একই জবাব দেন।

তবে তাদের এক আত্মীয় জানান, ‘মামুন একজন ব্যবসায়ী এবং সপ্তাহ খানেক ধরে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।’

আদালতে দেয়া গুলশানের থানার তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২২ ফেব্রুয়ারি রাত ১১ টার আগে যেকোন সময় মাহমুদুর রহমান মান্না তাঁর গুলশানের বাসা থেকে ভাইবারের মাধ্যমে অজ্ঞাত এক প্রবাসীর সঙ্গে কথা বলেন। মান্না ওই কথোপকথনে সেনাবাহিনীর সাবেক এবং বর্তমান সিনিয়র কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার আগ্রহ দেখান। জবাবে অজ্ঞাতনামা ওই ব্যক্তি বলেন, ‘আপনাকে জিওসি লেভেল থেকে কল করাব, না আরেকটু সিনিয়র।’ জবাবে মান্না বলেন,‘জুনিয়র-সিনিয়র তো একটা ব্যাপার আছে, তার চাইতে বড় কথা হল ইফেকটিভ যারা। এ্যান্ড হু আন্ডারস্ট্যান্ড হু নোজ, এরকম হলে ভাল। মানে যার সাথে শেয়ার করা যাবে। যিনি আমাকে এনলাইটেন করতে পারবেন। মে বি আমিও তাকে বুঝতে পারব, বুঝাতে পারব।’

অজ্ঞাতনামা প্রবাসী বিগত ওয়ান ইলেভেনের ঘটনায় সরাসরি সম্পৃক্ত ছিল বলে জানায়। মাহমুদুর রহমামন মান্না সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার দেখালে , অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি তার (মান্না) সঙ্গে সেনাবাহিনীর সাবেক এবং বর্তমান লে. জেনারেলসহ এমনকি সেনাপ্রধানের সঙ্গে কথা বলার ব্যবস্থা করছেন বলে জানায়। অজ্ঞাতনামা প্রবাসী সেনাবাহিনীর ১৯ জন সিনিয়র কর্মকর্তার মধ্যে ১২ জনের সঙ্গে সরাসরি কথা বলার সম্পর্কেও কথা জানায়। সে মান্নাকে বলে, ‘ইউ উইল রিসিভ এ কল বাই টুমরো টুয়েলভ।’

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘এই কথোকথনে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীকে উস্কে দিয়ে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করা হয়।’

মাহমুদুর রহমান মান্নাকে আটক করা হয় ২৪ জানুয়ারি ভোররাতে। বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার সঙ্গেও তাঁর আরেকটি ভাইবার কথোপকথন প্রকাশ পেয়েছে একই সময়ে। দুটি ঘটনায়ই আলাদা মামলা হয়েছে। মান্না এখন দ্বিতীয় দফায় ১০ দিনের পুলিশ রিমান্ডে আছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: