বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Sex Cams
সর্বশেষ সংবাদ
ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «   সিঙ্গাপুরে আরও ১০ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত  » «   মিশিগানের হাসপাতালে আর রোগী রাখার জায়গা নেই  » «   ৩ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু  » «   যুক্তরাজ্যে ১ দিনে ৫৬২ জনের মৃত্যু  » «   ক্লিনিকে ডাক্তার নেই, ফিরে যাচ্ছেন রোগীরা  » «   ৩ হাজার হাজতিকে মুক্তি দিচ্ছে সরকার  » «   সংকটে বাংলাদেশের পাশে থাকার ঘোষণা বিদেশি ক্রেতাদের  » «   সিলেটে ডাক্তারদের প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ, ফার্মেসিতেই চিকিৎসা  » «   ৯ এপ্রিল পবিত্র শবে বরাত  » «   এবার স্পেনও ছাড়ালো চীনকে, ২৪ ঘণ্টায় ৭৩৮ মৃত্যু  » «   সিলেট বিভাগে বৃহস্পতিবার থেকে গণপরিবহন বন্ধ  » «   করোনা মোকাবিলায় দেশে দেশে লকডাউন  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তি, করোনা বদলে দিচ্ছে রাজনীতি  » «   খালেদার মুক্তির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাল যুক্তরাষ্ট্র  » «  

সালমান শাহ হত্যা মামলায় যেসব বিষয়ে তদন্ত করেছে পিবিআই



পাঁচটি কারণে জনপ্রিয় চিত্রনায়ক চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার (ইমন) ওরফে সালমান শাহ আত্মহননের পথ বেছে নেন বলে তদন্ত সংস্থা পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, সালমান শাহ খুন হননি। তার মৃত্যুর ঘটনাটি আত্মহত্যাজনিত।

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সংবাদ সম্মেলনে তদন্তের বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন অনুসারে, সালমান শাহের আত্মহত্যার পাঁচটি কারণ হলো- চিত্রনায়িকা শাবনূরের সঙ্গে সালমানের অতিরিক্ত অন্তরঙ্গতা; স্ত্রী সামিরার সাথে দাম্পত্য কলহ; মাত্রাধিক আবেগপ্রবণতার কারণে একাধিকবার আত্মঘাতী হওয়ার বা আত্মহত্যার চেষ্টা; মায়ের প্রতি অসীম ভালোবাসা জটিল সম্পর্কের বেড়াজালে পড়ে পুঞ্জীভূত অভিমানে রূপ নেয়া এবং সন্তান না হওয়ায় দাম্পত্য জীবনে অপূর্ণতা।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয় ২০১৬ সালের ২০ ডিসেম্বর পিবিআই ঢাকা মেট্রো (উত্তর) ঢাকার পুলিশ পরিদর্শক মো. সিরাজুল ইসলাম (বাবুল)-কে মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয়।

মামলার তদন্তভার গ্রহণের পর পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার, বিপিএম (বার)-পিপিএম এর নির্দেশে তদন্তকারী কর্মকর্তাকে তদন্তে সহায়তা করার জন্য পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ তরিকুল ইসলাম, পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ জুয়েল মিঞা ও পুলিশ পরিদর্শক মো. হুমায়ূন কবির মোল্লার সমন্বয়ে একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয় এবং তার প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধান ও সার্বিক দিক-নির্দেশনায় মামলার তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়।

পিবিআই কর্তৃক তদন্তকালে ঘটনার সময় উপস্থিত ও ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ৪৪ জন সাক্ষীর জবানবন্দি ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬১ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয়। এছাড়াও ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় লিপিবদ্ধ করা হয় এবং ঘটনা সংশ্লিষ্ট আলামত জব্দ করা হয়।

এই মামলা তদন্ত করতে গিয়ে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনায় এনেছে পিবিআই। সেগুলো হলো- ১ম ও ২য় সুরতহাল রিপোর্ট, ১ম ও ২য় ভিসারা রিপোর্ট, কেমিক্যাল রিপোর্ট, ১ম ও ২য় ময়না তদন্ত রিপোর্ট, বিশেষজ্ঞ মেডিকেল বোর্ড কর্তৃক মতামত, হস্তলিপি বিশারদের মতামত, ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও বিল্ডিংয়ে প্রবেশ এবং বাহির সংক্রান্তে বিশেষজ্ঞের মতামত, রিজভী আহমেদ ওরফে ফরহাদ ও জরিনা বেগমের অডিও রেকর্ড, সাক্ষীদের ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারায় প্রদত্ত জবানবন্দি, ঘটনা সংশ্লিষ্ট সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রেকর্ডকৃত ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৬১ ধারায় জবানবন্দি, জব্দকৃত আলামত পর্যালোচনা, পূর্ববর্তী তদন্ত প্রতিবেদন সমূহ পর্যালোচনা, বিভিন্ন দালিলিক সাক্ষ্য, পারিপার্শ্বিক সাক্ষ্য, কাগজপত্র ও অন্যান্য সাক্ষ্য পর্যালোচনা।

এসব বিষয়াদি তদন্ত করে পিবিআই সিদ্ধান্তে পৌঁছায় নায়ক সালমান শাহ খুন হননি। তার মৃত্যুর ঘটনাটি আত্মহত্যা জনিত।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: