শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «  

রোমান্সের পর বিয়ে করতে আপত্তি, পরে বিয়ে করতে বাধ্য করল পুলিশ



1. marryআন্তর্জাতিক ডেস্ক::
এক প্রেমিকযুগল বেশ রোমান্সে মেতেছিলেন। কিন্তু ওই ঘটনার পর মেয়েটিকে বিয়ে করতে গড়িমসি করেন ছেলেটি। এ ঘটনায় ছেলেটির বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দেন মেয়েটির এক আত্মীয়। এরপর তাদের (বর-কনে) থানায় ধরে এনে পুরোহিত ডেকে ধর্মীয় রীতিনীতি মেনে, বাজনা বাজিয়ে মহা ধুমধামে বিয়ে দিলেন পুলিশকর্তারা।

ভারতের উত্তর প্রদেশের সারাই সাইফ খান এলাকায় বৃহস্পতিবার এই ঘটনাটি ঘটে। শনিবার ভারতীয় জনপ্রিয় ইংরেজি সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ খবর জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রদেশের সামভাল কোতোয়ালি পুলিশ স্টেশনে ওই প্রেমিকযুগলের বিয়ে দেওয়া হয়। সেদিন থানাটি একটি বিয়েবাড়ির মতো রূপ নেয়। ব্যান্ডপার্টিতে ‘আজ মেরে ইয়ার কি শাদি হায়’ গানের তালে তালে নৃত্য হয়। মিষ্টি-মিঠায়ও খাওয়ানো হয় উপস্থিত লোকজনকে।
সূত্র জানায়, মেয়েটিকে বিয়ে না করলে তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হবে- পুলিশের এমন হুমকির পর রাজি না থাকা সত্ত্বেও বিয়ে করে ছেলেটি।এরপর মেয়েটির এক আত্মীয়কে পুরোহিত ডেকে আনার নির্দেশ দেন পুলিশকর্তারা। থানাতেই বিয়ের সব আয়োজন সম্পন্ন হয়। বিয়ের আয়োজন শেষ করার পর নবদম্পতি সেলফিও তোলেন। এরপর বরের বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয় মেয়েকে।

তবে সম্মতির বাইরে বিয়ে দেওয়ায় পুলিশকে বেশ সমালোচনায় পড়তে হয়। অনেকে এই বিয়েকে ক্ষমতার অপব্যবহার বলেও দাবি করেন।পুলিশ ওই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছে। কোতোয়ালি পুলিশ স্টেশনের জ্যেষ্ঠ উপপরিদর্শক ওই বিয়ের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘মেয়েটি ও তার পরিবারের স্বার্থ সুনিশ্চিত করতেই তাদের বিয়ে দেওয়া হয়েছে। এটা সামাজিক ও ধর্মীয় রীতিনীতি মেনেই করা হয়েছে।’
জানা যায়, দীর্ঘদিন ওই যুগলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: