শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «   সিঙ্গাপুরে আরও ১০ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত  » «   মিশিগানের হাসপাতালে আর রোগী রাখার জায়গা নেই  » «   ৩ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু  » «  

মৌলভীবাজারে মায়ের ‘পরকীয়া’ দেখে ফেলায় মেয়ে খুন



নিউজ ডেস্ক:: মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় পরকীয়া দেখে ফেলায় মেয়েকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে মায়ের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত মায়ের নাম জেলি বেগম। তিনি উপজেলার বড়ধামাই গ্রামের বাসিন্দা কাতার প্রবাসী কাজল মিয়ার স্ত্রী। দুইমাস আগের এই ঘটনায় নিহত স্কুলছাত্রী শাহিনা জান্নাত অপির (১২) চাচী সুকেদা বেগম আদালতে পিটিশন মামলা দায়ের করেছেন। আদালত মামলার প্রতিবেদন দাখিল করতে থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ জুন রাতে অপি আত্মহত্যা করেছে বলে স্বজনদের মধ্যে প্রচার করেন মা জেলি বেগম। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে জেলি বেগমের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরদিন ১৯ জুন স্কুলছাত্রী অপির মরদেহ দাফন করা হয়। জেলি ‘আত্মহত্যায়’ মেয়ে মারা গেছে দাবি করে থানায় ইউডি মামলা করলেও প্রতিবেশীরা দাবি করেন ঘটনাটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।

জানা গেছে, ঘটনার রাতে পরকীয়ার বিষয়টি প্রবাসে থাকা বাবাকে বলে দেয়ার হুমকি দিলে মা জেলি বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে অপিকে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। এক পর্যায়ে সে মারা যায়। পরে মা জেলি বেগম গলায় ওড়না পেছিয়ে বাথরুমের বর্গায় মেয়ের মরদেহ ঝুলিয়ে সে আত্মহত্যা করেছে বলে এলাকায় প্রচার করেন। অপির শরীরে মারপিটের অসংখ্য দাগ থাকা স্বত্ত্বেও স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের সঙ্গে জেলি বেগমের গভীর সখ্যতা থাকায় তাদের মাধ্যমে থানা পুলিশকে অন্ধকারে রেখে তিনি ময়নাতদন্ত ছাড়াই মেয়ের মরদেহ দাফন করেন।

জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার জানান, বিজ্ঞ আদালত স্কুলছাত্রী অপির মৃত্যু সংক্রান্ত ইউডি মামলার প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। ইতোমধ্যে তা আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: