শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

মেট্রোতে ৯৪ শতাংশই পকেটমারে মহিলারা!



15. metro railআন্তর্জাতিক ডেস্ক::
সরকারি তথ্যে জানা গেছে, দিল্লিতে মেট্রো রেল পরিষেবায় যে পকেটমাররা ধরা পড়ছেন, তাদের মধ্যে শতকরা ৯৪জনই মহিলা। ভারতের রাজধানীতে মেট্রো নেটওয়ার্কে নিরাপত্তার দায়িত্বে আছে যে সিআইএসএফ বা কেন্দ্রীয় শিল্প নিরাপত্তা বাহিনী – তাদের দেওয়া তথ্যেই জানা গেছে সেখানে পুরুষ পকেটমারদের তুলনায় মহিলাদের সংখ্যা অনেকগুণ বেশি। আর এটা শুধু এ বছর নয়, গত বছরের পরিসংখ্যানও একই কথা বলছে। অর্থাৎ, দিল্লি মেট্রোতে পুরুষ পকেটমারের তুলনায় মহিলা পকেটমারের সংখ্যা শুধু বেশি নয়, প্রায় তেরো-চোদ্দ গুণ বেশি গত দুবছর ধরেই। সিআইএসএফের তথ্যই বলছে, এ বছরের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত মেট্রো রেলে মোট ২৯৩জন মহিলা পকেটমার ধরা পড়েছেন, যেখানে পুরুষ পকেটমারের সংখ্যা মাত্রই ২২জন।

নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বলছেন, বিশেষ করে অফিসের সময় ভিড়ে ঠাসা ট্রেনের কামরাগুলোই মহিলা পকেটমাররা টার্গেট করে থাকেন এবং অনেক সময়ই তাদের সঙ্গে থাকে একটি শিশু বা কোলে বাচ্চা, যাতে তাদের পকেটমার হিসেবে সন্দেহ করাটাই কঠিন হয়। ফলে যদি কোনও যাত্রী ধরা যাক ট্রেনের ভেতর বুঝতেও পারলেন তার মানিব্যাগ কিংবা মোবাইল ফোনটি খোয়া গেছে, কোলে শিশু নিয়ে থাকা একজন মহিলার ওপর সন্দেহটা কম হবে, এটাই স্বাভাবিক।

নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের অভিজ্ঞতা আরও বলছে, যদি কোনও মহিলা পকেটমার ট্রেনে ধরাও পড়ে যান তাকে সচরাচর গণপিটুনির হাত থেকে রেহাই দিয়ে সরাসরি পুলিশের হাতে তুলে দেওয়াটাই রীতি। কিন্তু পুরুষ পকেটমারদের অনেক সময়ই গণপিটুনির হাতে পড়তে হয়, ধরা পড়লে যাত্রীদের সবাই তাকে দুচার ঘা দিয়ে থাকেন কাজেই পকেটমারির যে সব সংগঠিত চক্র দিল্লিতে সক্রিয়, তারাও মহিলাদের ব্যবহার করতেই বেশি পছন্দ করে!

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: