শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি, চার পুলিশ সদস্য কারাগারে



যশোরে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি নেয়ার মামলায় চার পুলিশ সদস্যকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। রোববার জেলা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মঞ্জুরুল ইসলাম তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

আসামিরা হলেন- যশোর সদর উপজেলার ছাতিয়ানতলা ঘোপগ্রামের সাইফুর রহমানের ছেলে (অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট, ঢাকা) রানা হাসান (কনস্টেবল নম্বর ৮২১), বাঘারপাড়া উপজেলার সাইটখালী গ্রামের আহাদ আলীর ছেলে বাপ্পী মাহমুদ (ঝিনাইদহ জেলা পুলিশের কনস্টেবল নম্বর ১৪৬৫), চৌগাছা উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে মনিরুজ্জামান (খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের কনস্টেবল নম্বর ৬১৬৮) ও কোটালীপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তার বিশ্বাসের ছেলে আলীম উদ্দিন (কনস্টেবল নম্বর ১২২৪)।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ২৬ নভেম্বর পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ভিত্তিতে একই বছরের ৩ ডিসেম্বর যশোর পুলিশ লাইন্স ময়দানে কনস্টেবল পদে নিয়োগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এদিন মুক্তিযোদ্ধা কোটায় কনস্টেবল পদে তারা চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হন। ছয় মাসের প্রশিক্ষণ শেষে তাদের বিভিন্ন কর্মস্থলে যোগদান করানো হয়।

এরপর তাদের দেয়া মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট যাচাই-বাছাইয়ের জন্য পুলিশ হেড কোয়ার্টারের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। যাচাই-বাছাইয়ে চূড়ান্তভাবে নিয়োগ পাওয়া আটজনের দেয়া মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট ভুয়া বলে প্রমাণিত হয়।

এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর মন্ত্রণালয়ের সুপারিশে গত ৩০ ডিসেম্বর প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগে আটজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন যশোর রিজার্ভ অফিসের আরওআই পুলিশ পরিদর্শক এম মশিউর রহমান।

মামলার এজাহারনামীয় ওই চার আসামি গ্রেফতার এড়াতে রোববার আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। বিচারক তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। সূত্র : জাগো নিউজ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: