বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক আইএজে কমিটির সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «  

ভারতকে মারের কোনো বিকল্প নেই!



2. masrafeeখেলাধুলা ডেস্ক::
মার, মার, মার! এটাই মূলমন্ত্র বাংলাদেশ শিবিরে। ভারতকে হারাতে গেলে মারের পাল্টা কোনও বিকল্প হয় না। চোখ বুজে মারতে হবে ভারতীয় বোলারদের। নইলে ভারতের মতো শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে জেতা সম্ভব নয়। এভাবেই দলকে তাতাচ্ছেন টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরফি বিন মতুর্জা।

বাংলাদেশ শিবিরে এটাই এখন হাওয়া। ভারতের বিরুদ্ধে জিততে হলে চোখ বন্ধ করে ব্যাট চালাতে হবে। যাকে বলে ধুন্ধুমার ব্যাটিং। নিজের ব্যাটসম্যানদের ওপর বিশ্বাস রাখেন মাশরফি। তিনি নিজে আহত। এখনও হাতের ব্যান্ডেজ খোলা হয়নি। তা সত্ত্বেও কুছ পরোয়া নেই। যে দলে তামিম, মুশফিকুর, সৌম্য সরকার, লিটন দাসের মতো ব্যাটসম্যান ও সাকিব আল হাসানের মতো অলরাউন্ডার আছেন, সেই দলের ম্যাচ না জেতার কোনও কারণ নেই। একটাই কাজ করতে হবে, প্রথম বল থেকেই ভারতীয় বোলারদের ওপর চড়ে বসতে হবে।

বাংলাদেশ দল এখন পুরোপুরি সুস্থ। দলের একনম্বর ফাস্ট বোলার রুবেল হোসেন ফিট। মঙ্গলবার মিরপুরে চুটিয়ে অনুশীলন করলেন। তাসকিন আমেদও সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ ছাড়া অধিনায়ক নিজে রয়েছেন সিম বোলিংয়ের নেতৃত্বে। যদিও ডান হাতে এখনও ব্যান্ডেজ। তা-ও বল করতে অথবা ফিল্ডিং করতে কোনও অসুবিধে হচ্ছে না।

এদিকে মুখে ভারতকে শক্তিশালী দল বললেও ভারতকে যে হারানো যায়, তা বিশ্বাস করেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। ফাস্ট বোলার তাসকিন গত বছর সুরেশ রায়নার দলের বিরুদ্ধে বৃষ্টিভেজা মিরপুরে ৫টি উইকেট নিয়েছিলেন।

সেই তাসকিন মঙ্গলবার বলে গেলেন, ‘আমরা একদিনের ক্রিকেট সবসময় ভাল খেলি। আমাদের অবহেলা করার কোনও জায়গা নেই। বিশ্বকাপের পর এবং ঘরের মাঠে পাকিস্তানকে হারানোর পর আমাদের মনোবল অনেকটাই বেড়ে গেছে। আমরা জানি ভারতের শক্তি। কিন্তু তা বলে আমরা পিছিয়ে নেই। আমরা সমানে সমানে লড়াই করার জন্য প্রস্তুত।’

টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর একদিনের ম্যাচে কিপিং করবেন। টেস্টে যদিও করেননি পিঠের ব্যথার জন্য। লিটন দাস করেছিলেন। সব মিলিয়ে বোঝাই যাচ্ছে, টেস্টের কথা ভুলে একদিনের ম্যাচে নতুন করে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে প্রস্তুত মাশরফির বাংলাদেশ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: