শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

বিশ্বনাথে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে



BAU_Child_Labour_news_Pic_1-300x266নিউজ ডেস্ক :: বিশ্বনাথে শিশু শ্রমিক সংখ্যা দিন দিন আস্কাজনক হারে বাড়ছে। দরিদ্রতার কারণে অনেক অভিভাবক তাদের শিশু সন্তানদের স্কুলে না পাঠিয়ে জীবন-জীবিকার সন্ধানে কাজে পাঠাচ্ছেন। এলাকার অনেক শিশু প্রাথমিক বিদ্যালয়ের লেখা-পড়া শেষ করার আগেই ঝরে পড়ছে। যে বয়সে শিশুদের বই খাতা নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা সে বয়সে তারা জীবিকার টানে হোটেল-রেস্টুরেন্ট,চা-স্টল,ইট ভাংগা,নির্মান কাজ,রিকসা চালানো,গাড়ির হেলপার,দোকান কর্মচারীসহ বিভিন্ন ধরনের কঠিন ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমে জড়িয়ে পড়ছে।

এসব শিশুদের সংঙ্গে আলাপ হলে জানা যায়, এদের বেশির ভাগই দরিদ্র ও বিত্তহীন পরিবারের সন্তান। পারিবারিক আর্থিক অনটনে তারা শিশু শ্রমে যুক্ত হয়েছে।
চা-ষ্টালের শিশু শ্রমিক সুমন (৮) এর সাথে আলাপ কালে জানা যায়,তার মা-বাবা স্কুলে ভর্তি করতে চেয়েছিল,কিন্তু অর্থের অভাবে স্কুল ছেড়ে চা-ষ্টলে ৩ শত টাকা বেতনে চাকরি নিয়েছে। সারাদিন এ দোকান ও দোকানে চায়ের কাপ হাতে নিয়ে ছুটোছুটি করে সুমন ক্লান্ত পায়ে রাতে বাড়ি ফিরে। পরদিন কাকডাকা ভোর থেকে আবার শুরু হয় তার কর্মব্যস্ততা।
সুমনের মতো উপজেলায় অনেক শিশুশ্রমিক রয়েছে। তেমনি আর এক শিশু মিলন (৯) রিকসা চালায় বিশ্বনাথ বাজারে। তার বাবা কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তিন বছর আগে। সংসারে সে বড় সন্তান হওয়ায় কাজ হিসেবে বেচে নিয়েছে বাবার রেখে যাওয়া রিকসা।
এক পরিসংখ্যায় দেখা গেছে, অধিকাংশ শিশু শ্রমিকের বয়স ৭/১০ বছর। এসব শিশু শ্রমিক মালিক দ্বারা শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। সামান্য ভুল হলেই নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যায়। সরকারের পক্ষ থেকে শিশুশ্রম বন্ধের আইন থাকলে তার যথাযথ বাস্তবায়ন নেই। এছাড়াও প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা হলেও সচেতনতার অভাবে অনেক অভিভাবক তাদের শিশু সন্তানদের স্কুল থেকে ছাড়িয়ে কাজে ভর্তি করে দিচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: