শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «  

বিদেশে পলাতক আসামিদের ফিরিয়ে আনতে নতুন টাস্কফোর্স



নিউজ ডেস্ক:: বিচার ও দণ্ডাদেশ কার্যকর করতে পলাতক আসামিদের বিদেশ থেকে ফিরিয়ে আনতে নতুন করে একটি টাস্কফোর্স গঠন করেছে সরকার। গত ১৫ অক্টোবর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এই টাস্কফোর্স গঠন করে আদেশ জারি করা হয়েছে। এর আগের সরকারের সময় এই টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছিল। গত জানুয়ারিতে নতুন সরকার গঠন হওয়ার পর নতুন করে টাস্কফোর্স গঠন করা হলো।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কয়েকজন খুনিসহ বিভিন্ন মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি বিভিন্ন দেশে পালিয়ে আছেন। ১১ সদস্যের নতুন টাস্কফোর্সের সভাপতি আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী। এতে সদস্য হিসেবে রয়েছেন- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, অ্যাটর্নি জেনারেল, পররাষ্ট্র সচিব, জননিরাপত্তা সচিব, সুরক্ষাসেবা বিভাগের সচিব, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব, পুলিশ মহাপরিদর্শক, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) মহাপরিচালক এবং প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদফতরের (ডিজিএফআই) মহাপরিচালক।

জননিরাপত্তা বিভাগ এ টাস্কফোর্সকে সাচিবিক সহায়তা দেবে। টাস্কফোর্স বিদেশে অবস্থানরত আসামিদের (বাংলাদেশের নাগরিক) বিচারার্থে ও দণ্ডদানার্থে বাংলাদেশে আনতে তাদের নামের তালিকা প্রণয়ন করবে।

যথাযথ সূত্র ব্যবহার করে বিদেশে আসামিদের অবস্থান চিহ্নিতকরণ, সংশ্লিষ্ট দেশ থেকে আসামিদের দেশে ফিরিয়ে আনার উপায় নির্ধারণ এবং ফেরত আনার কার্যক্রম তদারকি এবং কোনো আসামি ইতোমধ্যে বিদেশে নাগরিকত্ব গ্রহণ করে থাকলে সেক্ষেত্রে তাকে ফিরিয়ে আনার উপায় নির্ধারণ ও এ-সংক্রান্ত কার্যক্রম তদারকি করবে টাস্কফোর্স।

টাস্কফোর্সের কার্যক্রম পূর্বের ধারাবাহিকতায় পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। টাস্কফোর্স প্রয়োজনে সদস্য অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে। টাস্কফোর্সের সভা প্রয়োজন অনুসারে অনুষ্ঠিত হবে বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: