রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

নিরাপত্তার অজুহাত : সাড়ে ৩ মাস পর সিলেট-ছাতক রেল লাইনে ট্রেন চলাচল শুরু



4. chhatak-sylhet trainবিশ্বনাথ প্রতিনিধি::
নিরাপত্তার অজুহাতে প্রায় ১০০ দিন পর বৃহস্পতিবার সকালে সিলেট-ছাতক রেল লাইনে ট্রেন চলাচল শুরু করেছে। রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, গত ৫ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া বিএনপি-জামায়াতের অবরোধ চলাকালে নিরাপত্তার অজুহাতে বন্ধ করে দেয়া হয় এ রুটের ট্রেন সার্ভিস। সিলেট-ছাতক লাইনে মাঝে মধ্যে মালবাহী ট্রেন চলাচল করলেও একেবারেই বন্ধ রয়েছিল যাত্রীবাহী ট্রেন। সিলেট হতে ছাতক পর্যন্ত প্রায় ৩৫ কিঃমিঃ দীর্ঘ রেলপথটি ১৯৫৬ সালে নির্মাণ করা হয়। এ লাইনে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত নিরবচ্ছিন্ন ট্রেন সার্ভিস চালু ছিল।

ট্রেনে প্রায় ৪৫ মিনিটে ছাতক হতে সিলেট পৌঁছতে পারতেন যাত্রীগণ। সিলেট হতে ছাতক যেতে ট্রেনটি পথিমধ্যে দু’টি স্টেশনে (ছাতক উপজেলার আফজালাবাদ ও বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চীগাঁও) যাত্রাবিরতি করতো। ছাতক, আফজালাবাদ ও খাজাঞ্চীগাঁও-এ তিনটি রেলস্টেশনের পাশ্ববর্তী এলাকার বিপুল সংখ্যক যাত্রীর সিলেট নগরীতে যাওয়া-আসার একমাত্র উপায় ছিল এটি।

সূত্রমতে, ১৯৮৫ সাল থেকে ওই রেলপথে মন্দাভাব দেখা দেয়। নির্ধারিত সময়ে ট্রেন চলাচল না করায় যাত্রীরা সময়মতো গন্তব্যে পৌঁছতে পারতেন না। শিল্প নগরী ছাতক থেকে চুনা পাথর, সিমেন্ট, স্লিপার, বালু, বোল্ডার ও ভাঙা পাথর দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হতো এ রেলপথ দিয়ে। বর্তমানে এ লাইনের বেহাল দশা। অকেজো স্লিপার, মেয়াদ উর্ত্তীণ বগি, পর্যাপ্ত পাথরের অভাব এবং যথাসময়ে প্রয়োজনীয় মেরামত না করায় এ রোডে যাত্রীবাহী ও মালবাহী ট্রেনের প্রায়ই লাইনচ্যুতের খবর মেলে। দেশের বেশীরভাগ পাথর-স্লিপার ছাতক থেকে সরবরাহ হলেও এ রেলসেকশনের রেল পথে অনেক স্থানেই নেই পাথর।

যাত্রী সাধারণের যাতায়াতের জন্য দু’টি জরাজীর্ণ বগি দেয়া হতো। ট্রেনের এসব বগিতে নেই বিদ্যুৎ ও পানির সুবিধা, নেই দরজা-জানালা। ট্রেনের সিটগুলোও ভাঙা, ভর্তি থাকে ময়লা আবর্জনায়। আবার যাত্রীবাহী ট্রেনের সাথে মালবাহী বগি জোড়া দেয়া হয়। তখন ট্রেন লাইনচ্যুত হয়। এরপরও ভাড়া তুলনামূলক কম হওয়ায় এই লাইনে যাত্রীরা ট্রেনে চলাচলে অনেকটা সুবিধাজনক মনে করতেন। শীত মৌসুমে বিশ্বনাথ খাজাঞ্চী ও ছাতক উপজেলার আফজালাবাদ এলাকা থেকে প্রচুর সবজি দেশের বিভিন্ন জায়গায় বাজারজাত করা হয়। আর সবজি পরিবহন খরচ কম হওয়ায় ব্যবসায়ীরা রেলপথে সিলেট শহরে সবজি বাজারজাত করতে স্বাচ্ছ্যন্দবোধ করেন। কিন্ত গত সাড়ে তিন মাস যাবৎ ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকার পর বৃহস্পদিবার আবার ট্রেন চলাচলা শুরু করায় সাধারণ মানুষ ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা খুশি।

ট্রেনচলাচলের সত্যতা স্বীকার করে সিলেট রেলওয়ে ষ্টেশন মাস্টার কাজী শহিদুর রহমান বলেন, নিরাপত্তার কারণে গত ৫ জানুয়ারী থেকে সিলেট-ছাতক লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। জিআরপি পুলিশের রির্পোটের ভিত্তিতে ট্রেনের ইঞ্জিন ও বগি ‘ইমারজেন্সি সাটল’ এ রাখা হয়েছে। কিন্তু গতকাল সাটল পুলিশ তুলে নেয়। ফলে সিলেট-ছাতক আবার ট্রেন চলাচল শুরু করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: