শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «  

নিউইয়র্কে সাদেক হোসেন খোকার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত



নিউজ ডেস্ক:: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার প্রথম জানাজা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টায় এই জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় ইমামতি করেন মুসলিম সেন্টারের খতিব মাওলানা মির্জা আবু জাফর বেগ জানাজায় উপস্থিত ছিলেন খোকার দুই ছেলে, মেয়ে্ ও স্ত্রী।

সাদেক হোসেন খোকার বড় ছেলে ইশরাক হোসেন বলেন, আমি প্রথমেই আপনাদের ধন্যবাদ জানাই। আপনাদের ভালবাসা ও সমর্থনের কারণেই আজকে উনাকে (আমার বাবাকে) বাংলাদেশে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে। আর এটাই ছিল উনার শেষ ইচ্ছা। আর কয়েকটি কথা না বললেই নয়। আমার বাবা যখন প্রথম এখানে (নিউইয়র্কে) এসেছিলেন, তখন থেকেই উনি চতুর্থ ধাপের ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগী ছিলেন।

এখানে আসার পর আপনারা বাংলাদেশ কমিউনিটি যে সমর্থন দিয়েছেন, আমি ছেলে হিসেবেও সেই কাজগুলো উনার জন্য করতে পারিনি। উনার পাশে সবসময় থাকতে পারিনি। আজকে এই কৃতজ্ঞতা আমাকে প্রকাশ করতেই হবে।

ইশরাক বলেন, আমি বাংলাদেশ কনস্যুলেটকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। আমার বাবার মৃত্যুর পরে হলেও, পাসপোর্ট না হলেও দেশে নেওয়ার জন্য ট্রাভেল পারমিট ইস্যু করতে সব ধরনের সহযোগিতা করেছেন। উনার দাফন বাংলাদেশেই হবে। আমার মা ট্রাভেল পারমিট সংগ্রহ করতে পেরেছেন।

জানাজায় উপস্থি ছিলেন খোকার দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহযোগী কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা আব্দুস সালাম, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের সভাপতি ডা. সিদ্দিকুর রহমান ও নিউইয়র্ক কনস্যুলেটের ফার্স্ট সেক্রেটারি শামীম হোসেন।

মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার জানাজার সময় সময় তার কফিনটি বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকায় মোড়ানো ছিল এবং জানাজা শুরুর আগে মুক্তিযোদ্ধারা রণাঙ্গণের বীর যোদ্ধাকে স্যালুট দিয়ে বিদায় জানান। জানজায় দলমত নির্বিশেষ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত শেষ শ্রদ্ধা জানান।

নিউইয়র্ক সময় মঙ্গলবার রাত ১১টায় আমিরাত এয়ার লাইন্সে করে সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ দেশের উদ্দেশে পাঠানো হবে। বৃহস্পতিবার সকালে মরদেহ ঢাকায় পৌঁছনোর কথা রয়েছে।

খোকার ঘনিষ্ঠ এক সূত্রে জানা গেছে, বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাকে সমাহিত করার ইচ্ছা প্রকাশ করে গেছেন তিনি।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুন নেসা জানান, সাদেক হোসেন খোকার বড়ো ছেলে ইশরাক হোসেন কনস্যুলেটের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। নিয়মানুযায়ী ফিউনারেল হোমের কাগজপত্র পাওয়া মাত্রই কনস্যুলেট প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে।

কনসাল জেনারেল জানান, সাদেক হোসেন খোকার স্ত্রী ইসমত আরার জন্য ট্রাভেল পাস চেয়ে আবেদন করা হয়েছিল। কনস্যুলেট অফিস দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে তা দিয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: