মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «  

নবীগঞ্জে নেই কৃষকের ঈদ আনন্দ, ব্যবসায়ীরাও হতাশ



নিউজ ডেস্ক:: নবীগঞ্জ উপজেলাজুড়ে কৃষকের মাঝে নেই ঈদ আনন্দ। ধানের মূল্য কম হওয়ায় উপজেলার কৃষক পরিবারের ঈদ আনন্দ ম্লান হয়ে গেছে। ঈদ দুয়ারে কড়া নাড়লেও ঈদের আনন্দ যেন তাদের কাছে বিষাদে রূপ নিয়েছে।

এদিকে কৃষক পরিবারে ঈদ না থাকার চাপ পড়েছে ঈদ বাজারেও। ক্রেতাশূন্য ঈদ বাজারে মাথায় হাত পড়েছে ব্যবসায়ীদেরও। বিভিন্ন ধরণের জিনিস আর বাহারি সব কাপড়ের পসরা সাজিয়ে বসলেও কাঙ্কিত ক্রেতার দেখা মিলছে না।

নবীগঞ্জ শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতাশূন্য বিতাণী বিতানগুলো। ক্রেতার দেখা না মেলায় বসে রয়েছে কর্মচারিরা। শুধু কৃষক পরিবারই নয়, ভালো বেচা-বিক্রি না হওয়ায় ঈদ নিয়ে বিষাদে পুড়ছেন ব্যবসায়ীরাও। কর্মচারিদের বেতন-বোনাস দেয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছে ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন- উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারগুলোতে ঈদে জামজমাট বিকি-কিনি হলেও এ বছরের দৃশ্য অন্যরকম। ঈদের বর্ণিল সাজে দোকানগুলো সাজলেও ক্রেতা কম। কারণ একটাই ধানের মূল্য কম।

নবীগঞ্জ শহরের ব্যবসায়ী মঈনুল হক জানান, ঈদ উপলক্ষে ভালো বিক্রির আশায় অনেক কাপড় দোকানে তুলেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিন ভাগের এক ভাগও বিক্রি করতে পারিনি।’ তিনি বলেন- ‘লাভ তো দূরের কথা, কর্মচারিদের বেতন-বোনাস কি করে দেব তা বুঝে উঠতে পারছি না। এ অবস্থা আমাদের বিশাল লোকসান গুণতে হবে।’

শেরপুর রোডের ব্যবসায়ী তৌফিক ইসলাম জানান- ‘গত বছরের তুলনায় এ বছর অনেক কম বিকি-কিনি হচ্ছে। কাপড় ব্যবসায়ীরা আশায় থাকেন ঈদে ভালো বিক্রি করার। কিন্তু এই ঈদ যেন কাপড় ব্যবসায়ীদের জন্য হতাশা নিয়ে এসেছে।

এ ব্যাপারে উপজেলার বাউশা গ্রামের আজাদ মিয়া জানান- এ বছর ধানের বাম্পার ফলন হয়েছিলো। ভেবেছিলাম ঈদে ছেলে মেয়েদের ভালো কাপড়-চোপড় কিনে দেব। কিন্তু আমাদের সেই আনন্দ মলিন করে দিয়েছে ধানের কম দাম।’

তিনি বলেন- ভালো কাপড় কেনাতো দূরের কথা পুরাতন কাপড়ও ছেলে মেয়েদের দিতে পারব কি-না জানি না।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: