রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

নগরীর মিরের ময়দানে সেপটিক ট্যাংকে অগ্নিদগ্ধ মা-মেয়ের মৃত্যু



download (2)নিউজ ডেস্ক: সিলেট নগরীর মিরের ময়দানে শুক্রবার রাতে বাথরুমের ভেতরে মিথেন গ্যাস থেকে সৃষ্ট অগ্নিকান্ডে দগ্ধ মা-মেয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। শনিবার সন্ধ্যা ৬টায় তারা মৃত্যুর কোলে পড়েন বলে নিহত গৃহকত্রী মনোয়ারা বেগমের ছেলে সৈয়দ আফসান জামিল জানিয়েছেন।

নিহতরা হলেন- মিরের ময়দান অর্ণব ৭ নং বাসার মৃত জাকির হোসেনের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৪৫) ও তার মেয়ে জাহিদা আক্তার (২০)। জাহিদা সিলেট নগরীর মঈন উদ্দিন আদর্শ মহিলা কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী। এছাড়া, গৃহকত্রীর ছেলে জহির হোসেন (১৪)ও এতে আহত হয়েছেন। তবে, তার অবস্থা গুরুতর নয়।

সিলেট ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাবেদ হোসেন মো: তারেক জানান, শুক্রবার রাত ১১টা ১০ মিনিটের দিকে মিরের ময়দান অর্ণব ৭ নম্বর বাসার বাসিন্দা গৃহকত্রী মনোয়ারা বেগমের কন্যা জাহিদা বিদ্যুত না থাকায় মোমবাতি নিয়ে বাথরুমে যান। বাথরুমের কমোডের ঢাকনা তোলা মাত্রই হাতের মোমবাতি থেকে বাথরুমে আগুন ধরে যায় এবং সজোরে একটি শব্দ হয়। আগুনের হাত থেকে জাহিদাকে রÿা করতে গিয়ে মনোয়ারা ও তার ছেলে জহির হোসেন আহত হন। ওই কর্মকর্তা জানান, মূলত মিথেন গ্যাস থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। আর দুটি কারণে মিথেন গ্যাসের সৃষ্টি হতে পারে। একটি হচ্ছে-দীর্ঘদিন ধরে কমোডের ঢাকনা লাগানো অথবা স্যুয়ারেজের ট্যাঙ্কি থেকে কমোডে এসে গ্যাস ফর্ম করা। আগুনে বাথরুমের ফরমিকার দরজা ছাড়াও বাসার কিছু আসবাবপত্র ও কিছু মালামাল পুড়ে গেছে বলে জানান মো: তারেক। এতে মা-মেয়ে গুরুতর আহত হন বলে জানান তিনি।

এদিকে, বাসার ভেতর মানুষের চিৎকার ও আগুন দেখে আশপাশের লোকজন ছুটে গিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে দমকল বাহিনীও ছুটে আসে ঘটনাস্থলে। তবে, ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন।
ওসমানী মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের সিনিয়র স্টাফ নার্স দিপালী জানান, মনোয়ারা বেগম ও তার মেয়ে জাহিদার শরীরের প্রায় ৬০ ভাগ পুড়ে গেছে। অবস্থা খারাপ হওয়ায় রাতেই তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। মা-মেয়ে গুরুতর আহত হয়েছে। তাদেরকে প্রথমে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এবং পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: