শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

ধাক্কা দিয়ে শিশু কন্যাকে সুরমা নদীতে ফেলে দিলেন সৎমা!



নিউজ ডেস্ক:: সিলেট শহরতলীর কুমারগাঁয়ে মায়া বেগম (৫) নামে এক শিশুকে সুরমা নদীতে ফেলে দিলেন তারই সৎ মা সালমা বেগম। ঘটনার পর থেকে ওই শিশু নিখোঁজ রয়েছে। আর স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশ তার সৎ মা সালমাকে আটক করেছে।

জানা গেছে, শুক্রবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। শিশু মায়া সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ থানা এলাকার ফতেহপুর গ্রামের জিয়াউল হকের মেয়ে। বিকেলে জালালাবাদ থানা হাজতে আটক থাকা অবস্থায় সালমা বেগম দাবি করেছেন, তিনি শিশুটিকে নিয়ে সেতুর রেলিংয়ে বসেছিলেন। এসময় অসাবধনতাবশতঃ শিশু নদীতে পড়ে যায়। সালমা বেগম সিলেট মহানগরীর জালালাবাদ থানার ফতেহপুর গ্রামের জিয়াউল হকের স্ত্রী।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় লোকজনের বরাত দিয়ে জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অকিল উদ্দিন আহমদ জানান, শুক্রবার দুপুরে সৎ মেয়ে মায়াকে নিয়ে স্বামীর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি মীরেরগাওয়ে যাচ্ছিলেন সালমা বেগম। কুমারগাওয়ে সুরমা নদীর উপর নির্মিত সেতুর উপর আসার পর মেয়েকে নদীতে ফেলে দেন তিনি। পরে জনতার সহায়তায় সালমাকে আটক করা হয়। আর ডুবুরিরা চেষ্টা চালিয়েও সন্ধ্যা পর্যন্ত শিশুটিকে উদ্ধার করতে পারেনি।

জানা যায়, সালমার মামাতো বোন রাজনা বেগমের সাথে বিয়ে হয় ফতেহপুর গ্রামের জিয়াউল হকের। বনিবনা না হওয়ায় তাদের ডিভোর্স হয়। ওই দম্পত্তির সন্তান মায়া। রাজনাকে ডিভোর্সের পর সালমাকে বিয়ে করেন জিয়াউল হক। সালমা বেগমও দুই বছর বয়সী এক কন্যা সন্তানের জননী। মায়াও এই দম্পত্তির সাথে থাকতেন। শুক্রবার নিজের সন্তানকে বাড়িতে রেখে সতীনের সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়ি রওয়ানা দেন সালমা। এরপর সেতুতে উঠে মেয়েটিকে নদীতে ফেলে দেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: