রবিবার, ৩১ মে ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «   সিঙ্গাপুরে আরও ১০ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত  » «   মিশিগানের হাসপাতালে আর রোগী রাখার জায়গা নেই  » «   ৩ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু  » «  

দেশে ফিরছেন ভূ-মধ্যসাগর থেকে উদ্ধার ১৭১ বাংলাদেশি



নিউজ ডেস্ক:: ভূ-মধ্যসাগর থেকে জীবিত উদ্ধার হওয়া ১৭১ বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। লিবিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সরকারি বার্তায় বলা হয়- লিবিয়ার সংশ্লিষ্ট সংস্থার সহযোগিতায় দূতাবাস কর্তৃক ভূ-মধ্যসাগর হতে ৩০শে অক্টোবর উদ্ধারকৃত সকল বাংলাদেশির রেজিস্ট্রেশন এরইমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। এ সকল অভিবাসীকে দ্রুত সময়ের মধ্যে দেশে প্রেরণের জন্য রাষ্ট্রদূত এবং দূতাবাসের কর্মকর্তাগণ সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন।

বার্তায় আরো জানানো হয়- ত্রিপলীর চলমান যুদ্ধ পরিস্থিতিতে অভিবাসন কেন্দ্রে বাংলাদেশিদের প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান এবং নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের জন্য দূতাবাসের পক্ষ থেকে লিবিয়া সরকারের বিভিন্ন দপ্তর এবং আইওএম এর সঙ্গেও সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, লিবিয়া উপকূল থেকে নৌকায় করে ইউরোপ যাত্রাকালে দেশটির কোস্টগার্ড ভূ-মধ্যসাগর থেকে বাংলাদেশিসহ প্রায় ২০০ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করে। তাদের মধ্যে ১৭১ জন বাংলাদেশি। উদ্ধারকৃতদের ত্রিপলীর উপশহর জানজুর এবং আবু সেলিম ডিটেনশন সেন্টারে হস্তান্তর করা হয়। লিবিয়াতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ সিকান্দার আলী জানান, ৩০শে অক্টোবর তাদের উদ্ধারেরর পর তাৎক্ষণিক দূতাবাস থেকে লিবিয়ার অবৈধ অভিবাসন নিয়ন্ত্রণ সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে ডিটেনশন সেন্টার দুইটি পরিদর্শন এবং উদ্ধারকৃত বাংলাদেশি নাগরিকদের সাক্ষাৎকারের অনুমতি গ্রহণ করা হয়। ৩১শে অক্টোবর মধ্যাহ্নে দূতাবাস কর্মকর্তারা জানজুর ডিটেনশন সেন্টার পরিদর্শন করেন।

সে সময় রাষ্ট্রদূত জানান, উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশিদের দুটি সেন্টারে রাখা হয়েছে। একটি জানজুর, অন্যটি আবু সেলিম। আবু সেলিম ডিটেনশন সেন্টারের পার্শ্ববর্তী এলাকায় তখন জেনারেল খলিফা হাফতারের বাহিনী বিমান হামলা চলছিল। এতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তারা ওই ডিটেনশন সেন্টার পরিদর্শন করতে পারেননি। ওই সেন্টারের পরিচালক আলা জিলিতনীর বরাতে দূতাবাস জানায়, ওই সেন্টারে মোট ১২৮ জন বাংলাদেশি রয়েছেন। তারা সকলেই শারীরিকভাবে সুস্থ আছেন। দূতাবাসের তথ্য মতে, ভূ-মধ্যসাগর থেকে জীবিত উদ্ধার বিগত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় ঘটনা এটি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: