বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

দাড়ি রাখায় হিন্দু যুবককে মুসলিম ভেবে পেটালেন উগ্রবাদী হিন্দুরা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: দাড়ি রাখায় হিন্দু যুবককে মুসলিম ভেবে ভারতের দমদমের নাগেরবাজার এলাকায় বান্ধবিসহ এক যুবককে পেটালেন উগ্রবাদী হিন্দুরা। গত রবিবার রাতে ভারতের দমদমের নাগেরবাজারের এই ঘটনা ঘটে। হামলার শিকার ওই হিন্দু যুবক হলেন-জয়দীপ সেন ও তার বন্ধবির লিসা গাঙ্গুলী।

জানা যায়, ঘটনার দিন দমদমের নাগেরবাজারের একটি পানের দোকানে যান জয়দীপ-লিসা। তখনই জয়দীপের ওপর হামলা চালান এক ব্যক্তি। অশালীন মন্তব্য করা হয় তার বান্ধবী লিসাকে নিয়েও। লিসা এই ঘটনার প্রতিবাদ করলে ওই ব্যক্তি স্থানীয় বেশ কিছু লোকজন জোগাড় করে একটি বাঁধানো পুকুরের সামনে নিয়ে এসে বেধড়ক মারধর করতে শুরু করে জয়দীপকে। জয়দীপ জানিয়েছেন তার বান্ধবী লিসার গায়েও হাত তোলা হয়।

লিসার কাছে তার পুরো নাম জানার পর হামলাকারীরা জানতে চান- কেন সে এই মুসলিম ছেলেটির সাথে বেরিয়েছে? এরপরেই জয়দীপের পুরো নাম জেনে পরেও তার দাড়ির কাট দেখে তাকে মুসলমানের তকমা দিয়ে মারধর চালায় তারা। অবশেষে পুলিশে খবর দেয় জয়দীপ-লিসা। কামারডাঙ্গা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদের উদ্ধার করে মেডিকেল টেস্ট করিয়ে থানায় নিয়ে যায়।

এরপর ঘটে আরেক কাণ্ড। জয়দীপ-লিসা বাড়ির লোকদের ডেকে ঘুষ নেয় পুলিশ। তারপর তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। এই পুরো ঘটনাটি নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে পোস্ট করেন লিসা।

এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করার পরই তা ভাইরাল হয়েছে। অনেকে এরকম ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। এছাড়া ঘটনায় জড়িতদের ও ঘুষ নেওয়া পুলিশেরও বিচার চেয়েছেন। তবে এই পোস্ট দেখে কেউ কেউ খুন ও ধর্ষণের হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযাগ করেন লিসা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: