শনিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «  

চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সেনাসদস্যদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান সেনাপ্রধানের



নিউজ ডেস্ক:: বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গোলন্দাজ ও বীর রেজিমেন্টের চারটি ইউনিটকে রেজিমেন্টাল কালার প্রদান করা হয়েছে।আজ মঙ্গলবার মিরপুর সেনানিবাসের ২৫ এডি রেজিমেন্ট আর্টিলারি প্রশিক্ষণ মাঠে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ওই রেজিমেন্টাল কালার প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। সেনাবাহিনীপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

সামরিক ঐতিহ্য অনুসারে যেকোনো ইউনিটের জন্য রেজিমেন্টাল কালারপ্রাপ্তি অত্যন্ত গৌরবজনক। সেনাবাহিনী ও দেশমাতৃকার সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটকে রেজিমেন্টাল কালার প্রদান করা হয়।

এবারে গোলন্দাজ ও বীর রেজিমেন্টের চারটি ইউনিট রেজিমেন্টাল কালার অর্জনের মর্যাদা লাভ করে। ইউনিট চারটি শুরুতে কালার প্যারেডে অংশগ্রহণ করে এবং পরে সেনাপ্রধানের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে রেজিমেন্টাল পতাকা গ্রহণ করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কালারপ্রাপ্ত ইউনিটগুলোর উদ্দেশে সেনাপ্রধান বলেন, ‘রেজিমেন্টাল কালারপ্রাপ্তি যেকোনো ইউনিটের জন্য একটি বিরল সম্মান এবং পবিত্র আমানত। আজ এই রেজিমেন্টাল কালার এই চারটি ইউনিটের হাতে তুলে দেওয়া হলো। এ বিরল সম্মান ও গৌরব অর্জন করায় আমি এ ইউনিটসমূহকে জানাই আমার আন্তরিক অভিনন্দন।’

‘কর্মদক্ষতা, কঠোর পরিশ্রম এবং কর্তব্যনিষ্ঠার স্বীকৃতি হিসেবে যে পতাকা আজ আপনারা পেলেন, আমি আশা করি, তার মর্যাদা রক্ষার জন্য যেকোনো ত্যাগ স্বীকারে আপনারা সর্বদা প্রস্তুত থাকবেন এবং আপনাদের প্রতি জাতির এই আস্থা অটুট রাখার জন্য সর্বদা সচেষ্ট থাকবেন।’

সেনাপ্রধান আরো বলেন, ‘একটি আধুনিক ও যুগোপযোগী সেনাবাহিনী গঠনের লক্ষ্যে সকল সেনাসদস্যকে একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকতে হবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এ যাবৎ অর্জিত সম্মান রক্ষায় বাহিনীর সব সদস্যকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: