বৃহস্পতিবার, ৬ অগাস্ট ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২২ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «  

চুরি করতে এসে রান্না করে ভাত খেয়ে গেল চোর!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: একটি বাড়িতে চুরি করতে ঢুকেছিল চোর। চুরি তো করলই, রান্নাঘরে ঢুকে রীতিমতো রেঁধে বেড়ে ভাতও খেয়েছে সে। শুধু তাই নয়, বিছানায় কিছুক্ষণ গড়িয়েও নিয়েছে। তারপর ৪৫ হাজার টাকা ও লক্ষাধিক টাকার গয়না নিয়ে পালিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নরেন্দ্রপুরের পূর্ব আদর্শনগরে।

জানা গেছে, ওই ঘটনা ঘটেছে নরেন্দ্রপুরের শেফালি সর্দারের পূর্ব আদর্শনগরে বাড়িতে। বাড়িতে তিনিই একাই থাকেন। মেয়ের বাড়ি সোনারপুর উত্তরায়ন পল্লিতে। মেয়ে সন্তানসম্ভবা। শুক্রবার রাতে মেয়ের বাড়িতে যান শেফালি। তার আগে সকালে ব্যাঙ্ক থেকে ৪৫ হাজার টাকা তুলে এনেছিলেন। ডেলিভারির সময় প্রয়োজন পড়তে পারে আঁচ করেই এই টাকা ঘরে রেখেছিলেন শেফালি।

শনিবার সকালে পাড়ার লোক দেখতে পায় শেফালির বাড়ির মূল ফটকের তালা ভাঙা। ভাঙা দরজাও। চুরি হয়েছে বুঝতে পেরে পড়শিদেরই একজন ফোন করেন শেফালিকে। দ্রুত সোনারপুর থেকে নরেন্দ্রপুরে ফিরে আসেন শেফালি। ঘরে ঢুকে মাথায় হাত তার। দেখেন ঘর লন্ডভন্ড, শোকেস ভাঙা, আলমারি ভাঙা। খবর দেওয়া হয় পুলিশে। দ্রুত শেফালির বাড়ি চলে আসে পুলিশ। সব কিছু দেখে শেফালি জানান, ৪৫ হাজার টাকা ও লক্ষাধিক টাকার গয়না চুরি হয়েছে। কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।

পুলিশ শেফালির সব ঘর ঘুরে দেখে। রান্নাঘরে এঁটো থালা-বাটি দেখে সন্দেহ হয় পুলিশের। কারণ শেফালি পুলিশকে জানিয়েছিলেন, তিনি শুক্রবার বাড়িতে খাওয়ার কোনও পাট রাখেননি। মেয়ের বাড়িতেই খান। পুলিশ শেফালিকে রান্নাঘরে ডেকে আনে।

শেফালি বলেন, চোরই স্টোভ জ্বালিয়ে ভাত রান্না করেছে। ফ্রিজ খুলে আলু-লঙ্কা বের করেছে। তিনি কোনও থালাবাসন বা হাঁড়ি এঁটো রেখে যাননি। দেখা যায় রীতিমতো চেটেপুটে আলু, ভাত, লঙ্কা দিয়ে খেয়েছে চোর। তারপর এঁটো বাসনকোসন রান্নাঘরে রেখে শেফালির বিছানায় খানিক গড়িয়ে নিয়েছে। কোঁচকানো চাদর ও বালিশ দেখে এ সম্বন্ধে নিঃসন্দেহ হয় পুলিশ।

ঘটনা এখানেই শেষ নয়। যে ঘরে আলমারি ছিল, সে ঘরে কম পাওয়ারের আলো হওয়ায় বাথরুম থেকে বাল্ব খুলে ওই ঘরে লাগিয়েছিল চোর। চোরের এমন কান্ডকারখানায় হতবাক পাড়া-প্রতিবেশীরা। চমকে গিয়েছে পুলিশও। চোরের খোঁজ শুরু করেছে নরেন্দ্রপুর থানা। -জি নিউজ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: