শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক ইজিএনের নতুন সভাপতি, অনুরূপ সম্পাদক  » «   ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «  

চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে



নিউজ ডেস্ক:: বেসরকারি একটি ব্যাংকের কর্মকর্তা রিনি রাজীউন তিসা। ব্যস্ত নাগরিক জীবনের মাঝে ছুটি পেলে ঘুরে বেড়ান দেশ-বিদেশে। ফিরে আসার সময় মা-বাবার জন্য কাপড়সহ বিভিন্ন ধরনের উপহার নিয়ে আসেন।

এবারের ছুটিতে গত ১৪ নভেম্বর চীনে গিয়েছিলেন তিনি। দেশে ফেরার আগে ভাবলেন বাবা-মায়ের জন্য কী আনবেন? বাবাকে কল দিয়ে জানতে চাইলেন, বাবা এবার তোমাদের জন্য কী আনবো? বাবার উত্তর, যদি প্রয়োজনীয় কিছু আনতে চাও, তাহলে কয়েক কেজি পেঁয়াজ নিয়ে এসো। এখানে (ঢাকার সেগুনবাগিচা) পেঁয়াজের দাম ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত।

এরপর তিসা অন্য কোনো উপহার না কিনে ৩৮ টাকা করে ১১ কেজি পেঁয়াজ কিনলেন বাবা-মায়ের জন্য। দেশে আসার পর বিমানবন্দর কাস্টমসের লোকেরা সেই পেঁয়াজ দেখে অবশ্য মুচকি হেসেছিলেন।

তিসা জানান, চীনের একটা গ্রোসারি দোকান থেকে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে দেখি তার কাছে ১১ কেজিই আছে। দোকানি অবাক হয়ে দেখল আমার পেঁয়াজ কেনা। ১১ কেজি হবার পর একটা পেঁয়াজ বেশি ছিল, সেটাও গিফট হিসেবে দিয়ে দিয়েছে। দোকানির হাসি দেখে মনে হয়েছে কোনো বিদেশি ভ্রমণে গিয়ে তার কাছ থেকে কোনোদিন এত পেঁয়াজ কেনেনি।

এদিকে বাসায় আসার পর পেঁয়াজ দেখে সবাই খুব খুশি। বাবা-মায়ের ইচ্ছাতে আত্মীয়-স্বজনদের কিছু পেঁয়াজ উপহার হিসেবে ভাগ করে দেয়া হয়েছে। মামা, খালা ও চাচারা সবাই পেঁয়াজ উপহার পেয়ে আনন্দিত এবং অবাক হয়েছেন।

তিসা আরও জানান, এর আগেও অনেকবার বাবা-মাকে উপহার দিয়েছি, কিন্তু এবার পেঁয়াজ পেয়ে তারা যতটা খুশি হয়েছেন এতটা খুশি হতে দেখিনি কখনও। আমার ভালো লেগেছে এত খুশি দেখে। সেই সঙ্গে খারাপ লেগেছে দেশের অন্য মানুষের কথা ভেবে। তিসা এইচএসবিচি ব্যাংকের প্রধান শাখায় কর্মরত। তিনি রাজধানীর সেগুন বাগিচায় থাকেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: