মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «  

খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের সিদ্ধান্ত!



ziaনিউজ ডেস্ক :: ৫ জানুয়ারি বিএনপি ঘোষিত ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালন করতে না দেয়ার প্রেক্ষিতে দেশজুড়ে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেয় দলটি। এরপর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতায় ১১ জন নিহত হয়েছেন এবং দেড় শতাধিক গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে বা বিএনপি যদি অবরোধ প্রত্যাহার না করে, তাহলে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করা ছাড়া সরকারের হাতে অন্য কোনো অপশন থাকবে না। এমনটিই জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নীতিনির্ধারকেরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কবে-কখন এমন দিনক্ষণ ঠিক না করা হলেও তাকে গ্রেফতার করার ব্যাপারে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে- এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতা। তারা বলছেন, অবরোধ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সারাদেশে ঘটে যাওয়া নাশকতার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে বড় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণের আভাস পাওয়া গেছে।

কবে নাগাদ এ সিদ্ধান্ত আসতে পারে- জানতে চাইলে সম্পাদকমণ্ডলীর এক নেতা বলেন, আরও কিছু সময় দেওয়া হবে বিএনপিকে। অবরোধ কর্মসূচি কতটা দীর্ঘায়িত হয় সেটা পর্যবেক্ষণ করেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের পর দেশে বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে, এমন আশঙ্কা সরকারের মাঝে নেই। তবে সরকারের নীতি-নির্ধারণী সূত্রগুলো বলছে সরকার কত কঠোর হবে, সেই বিষয়টি বিএনপির ওপরই নির্ভর করছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে সরকারের ও দলের উচ্চপর্যায়ের নেতাদের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে খালেদাকে জেলে নেওয়ার মতো সিদ্ধান্তের কথা আলোচনা হয়েছে। দুইজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী ও তিনজন নেতা বৈঠকে নেওয়া এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

বৈঠকে উপস্থিত ওই সব নেতাদের কাছ থেকে এমন তথ্যও পাওয়া গেছে- বিএনপি চেয়ারপারসনকে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও বলেছেন, উনি (বেগম জিয়া) ভালো থাকতে চাচ্ছেন না। সরকারকে কঠোর অবস্থানে যেতে বাধ্য করছেন—তবে তাই হবে। উনাকে (বেগম জিয়া) দুই কম্বলেই থাকতে হবে (সাধারণত জেলখানায় কয়েদিকে দুটি কম্বল সরবরাহ করা হয়ে থাকে)।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল আলম হানিফ বলেন, অবরোধের নামে বিএনপির চলমান কর্মসূচিতে যে নাশকতার ঘটনা ঘটছে এগুলো বন্ধ করতে সরকারকে যত কঠোর হওয়া লাগে, ততই কঠোর হবে।

‘প্রয়োজনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করা হবে’- সরকারের শীর্ষ মহল থেকে এমন হুমকির বিষয়ে তার উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ম্যাডামকে (খালেদা জিয়া) তো আটকেই রাখা হয়েছে। তিনি কার্যত বন্দী। সরকার ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে খালেদা জিয়াকে অবরুদ্ধ করা হয়নি। কিন্তু বাস্তবতা তো ভিন্ন। তিনি কার্যালয় থেকে বের হতে পারেন না। তাকে বের হতে দেওয়া হয় না। কাউকে সেখানে যেতেও দেওয়া হয় না।

এর আগে গত ৬ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, জঙ্গিবাজি, বোমাবাজি, সহিংস কর্মকাণ্ডের উসকানিদাতা হিসেবে খালেদা জিয়া খুনের মামলার আসামি হতে পারেন এবং তাকে গ্রেফতারও করা হতে পারে।

উল্লেখ্য, ৫ জানুয়ারির ইস্যুকে কেন্দ্র করে গত ৩ জানুয়ারি রাত থেকে গুলশান কার্যালয়ে অবরুদ্ধ অবস্থায় দিনাতিপাত করছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: