বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ফিনল্যান্ডে ভাষা শহীদ দিবস পালন  » «   ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলের মোবাইলে পর্নো ভিডিও!  » «   বর্ণাঢ্য আয়োজনে ভেরনো’র প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন  » «   স্টকহোম বাংলাদেশ দূতাবাসে ‘গণহত্যা দিবস-২০২১’ পালিত  » «   নিকাব ছেড়ে পশ্চিমা পোশাকে ব্রিটেন ফেরার লড়াইয়ে শামীমা(ভিডিও)  » «   হারুন আর রশিদের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক তৃতীয়বারের মত ইজিএন সচিব নির্বাচিত  » «   মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরী`র মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধু পরিষদ ফিনল্যান্ডের শোক  » «   সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «  

ক্লিনিকের দরজা বন্ধ করে স্বামী-স্ত্রীকে পেটানো ‘ডাক্তারকে’ গ্রেফতার করল পুলিশ!



নিউজ ডেস্ক:: একটি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ফার্মাসিস্ট হয়েও নিজেকে এমবিবিএস পাশ করা ডাক্তার পরিচয় দিয়ে আসছিলেন হেদায়েত উল্লাহ (৫৪)। তিনি গৌরনদী পৌর এলাকায় দীর্ঘ দিন যাবত আনোয়ারা নামে একটি ক্লিনিক পরিচালনা করে আসছেন। রবিবার রাতে এক প্রসূতির অপারেশন করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন ওই ভুয়া ডাক্তার।

সোমবার বিকেলে পুলিশ তাকে বরিশাল চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করলে আদালত বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করেন। গৌরনদী মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাহাবুবুর রহমান জানান, বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ফার্মাসিস্ট হিসেবে মো. হেদায়েত উল্লাহ কর্মরত আছেন।

তার ক্লিনিকে আসা রোগীদের এমবিবিএস পাশ করা ডাক্তার পরিচয় দিয়ে প্রসূতিসহ অন্য রোগীদের অপারেশন করছিলেন। ওই পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, উপজেলার বাঘার গ্রামের বিমল রায় তার সন্তান সম্ভাবা স্ত্রী অনিতা রায়কে রবিবার রাত ১১টা দিকে তিনি আনোয়ারা ক্লিনিকে নিয়ে আসেন।

এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসককে খুঁজতে থাকলে হেদায়েত উল্লাহ নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে ক্লিনিকে ভর্তি হতে পরামর্শ দেন। রোগীর স্বজনরা হেদায়েত উল্লাহকে আগে থেকে চেনার কারণে অনিতাকে নিয়ে ক্লিনিক থেকে বের হয়ে অন্য ক্লিনিকে যাওয়ার জন্য চেষ্টা করেন।

এ সময় হেদায়েত উল্লাহ ও তার ক্লিনিকের স্টাফরা রোগী ও তার স্বজনদের আটকে দরজা বন্ধ করে দেন। এ নিয়ে রোগীর স্বজনদের সঙ্গে হেদায়েত উল্লাহ ও তার ক্লিনিকের স্টাফদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে রোগী ও তার স্বামীকে মারধর করেন হেদায়েত উল্লাহ ও তার স্টাফরা। পরে একটি কক্ষে রোগী ও তার স্বজনদের আটকে রাখা হয়।

মুঠোফোনে এখবর গৌরনদী থানায় অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রোগী ও স্বজনদের উদ্ধার এবং অভিযুক্ত কথিত চিকিৎসক হেদায়েত উল্লাহকে আটক করে। পরে রাতেই রোগীর স্বামী বিমল রায় বাদী হয়ে গৌরনদী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে হেদায়েতকে সোমবার দুপুরে বরিশালের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালতের বিচারক মো. আমিনুল ইসলাম অভিযুক্ত হেদায়েতকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: