সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «  

কোথায় পালালেন বুয়েটের ভিসি?



নিউজ ডেস্ক:: আবরার ফাহাদ হত্যার পর থেকেই বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামের খোঁজ মিলছে না। আবরার মৃত্যুর ৩০ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও তিনি এখনও ঘটনাস্থলেই আসেননি।তিনি আবরারের জানাযাতেও যোগ দেননি। এমনকি ফোনেও তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে আবরারের সহপাঠীসহ সাধারণ শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

গতকাল সোমবার থেকেই বুয়েটে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। তাদের শান্ত করতে আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার কিছু পরে ক্যাম্পাসে আসেন ছাত্রকল্যাণ পরিচালক (ডিএসডাব্লিউ) ড. মিজানুর রহমান। এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা তাকে ঘিরে ধরেন। ঘটনার জন্য তার ব্যর্থতা বিষয়ে প্রশ্ন করে তার পদত্যাগ দাবি করেন।

এসময় শিক্ষার্থীরা বুয়েটের ভিসির বিষয়ে জানতে চাইলে ড. মিজানুর বলেন, সেটা ভিসিকে বলতে পারেন – ভিসি আসবে কিনা এটা ওনার ব্যপার। তবে আমরা এখানে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করবো। এসময় শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে সবার সামনেই উপাচার্যকে ফোন করেন ড. মিজানুর। কিন্তু উপাচার্য ফোন না ধরে লাইন কেটে দেন। এরপর থেকে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

প্রসঙ্গত, গত রোববার (৬ অক্টোবর) দিবাগত মধ্যরাতে বুয়েটের সাধারণ ছাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবরারকে শেরেবাংলা হলের দ্বিতীয় তলা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। সোমবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পরবর্তীতে জানা যায়, ছাত্রলীগের নির্যাতনে মৃত্যু হয়েছে আবরারের। এ ঘটনায় ফুঁসে ওঠে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। গতকাল থেকেই তারা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: