শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «  

ওবামার সঙ্গে জেদের কারণেই ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের চুক্তি বাতিল!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ওপর ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যক্তিগত ক্ষোভের কারণেই পূর্বসূরির আমলে হওয়া ক্ষমতাধর ছয় দেশের সঙ্গে ইরানের পারমাণবিক চুক্তি থেকে বেরিয়ে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র।তবে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে তাকে নিষেধ করেছিল ঘনিষ্ঠ মিত্র যুক্তরাজ্য। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত স্যার কিম ড্যারচের ফাঁস হওয়া এক ইমেইল থেকে এ তথ্য জানা গেছে। খবর বিবিসির।

২০১৮ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন এক স্মারকলিপিতে যুক্তরাষ্ট্রকে পারমাণবিক চুক্তি থেকে বের না হতে আহ্বান জানিয়েছিলেন।ওই চুক্তি মোতাবেক, অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের শর্তে পারমাণবিক মজুদ সীমিতকরণে রাজি হয়েছিল ইরান। তবে ট্রাম্পের কাছে ওই চুক্তি যথাযথ মনে হয়নি।

রাষ্ট্রদূত স্যার কিম ড্যারচ তার ইমেইলে জানান, বরিস জনসন যুক্তরাষ্ট্র থেকে যুক্তরাজ্যে ফেরার পর জানিয়েছিলেন, ইরানের সঙ্গে হওয়া পারমাণবিক চুক্তি থেকে বের হয়ে আসার ঘোষণা দিতে পারেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।এর কারণ চুক্তিটি তার পূর্বসূরি বারাক ওবামার সময়ে হয়েছে। সাবেক প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার ব্যক্তিত্বের দ্বন্দ্বেই এ চুক্তি বাতিল হতে যাচ্ছে।

এ সিদ্ধান্ত নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টাদের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়া চুক্তি বাতিলের জন্য হোয়াইট হাউসের সুনির্দিষ্ট কোনো কর্মপরিকল্পনা নেই বলেও জানান ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত।পাশাপাশি ট্রাম্প প্রশাসনের এ ধরনের কর্মকাণ্ডকে ‘কূটনৈতিক ধ্বংসযজ্ঞ’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সম্প্রতি রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ গোপন নথি ফাঁস করার বিষয়ে গণমাধ্যমগুলোকে সতর্ক করেছে স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড। পাশাপাশি কোনো সাংবাদিক এ বিষয়ে আর কোনো তথ্য প্রকাশ করলে তার বিরুদ্ধে আইনিব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও হুশিয়ারি দিয়েছে ব্রিটিশ পুলিশ। এসব ঘটনার তদন্ত শুরু করছে স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: