সোমবার, ১ মার্চ ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংবাদ ২১ ডটকম সম্পাদক আন্তর্জাতিক `এইজে´র কমিটি সদস্য নির্বাচিত  » «   ফিনল্যান্ডে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন  » «   দেশে চীনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার  » «   অক্টোবর-নভেম্বরেই অক্সফোর্ডের ভ্যাকিসন  » «   রিজেন্ট হাসপাতালের এমডি মিজান গ্রেফতার  » «   নকল মাস্ককাণ্ডে ৩ দিনের রিমান্ডে অপরাজিতার শারমিন  » «   পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «  

উইঘুর নির্যাতন: কালো তালিকায় চীনের ২৮ সংস্থা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে মুসলিম সংখ্যালঘু উইঘুরদের ওপর নিপীড়নে জড়িত থাকার অভিযোগে দেশটির ২৮টি সংস্থাকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব সংস্থাগুলোকে তথাকথিত ‘এনটিটি লিস্টে’ ফেলা হয়েছে। ফলে ওয়াশিংটনের অনুমতি ছাড়া তারা কোনও মার্কিন কোম্পানির কাছ থেকে পণ্য কিনতে পারবে না। তবে মার্কিন এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি চীন।

যে ২৮ সংস্থাকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে সেগুলোর মধ্যে সরকারি এবং প্রযুক্তি সংস্থা বিশেষ করে নজরদারি ইক্যুপমেন্ট সরবরাহকারী কোম্পানিগুলোও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তবে যুক্তরাষ্ট্র এবারই প্রথম চীনা প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে এমন নয়, এর আগেও ট্রাম্প প্রশাসন চীনা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ওপর বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে,বেইজিং অনেকদিন ধরেই মুসলিম সংখ্যালঘু গোষ্ঠী উইঘুরদের ওপর নিপীড়ন চালাচ্ছে এবং অনেককে আটককেন্দ্রে বন্দি করে রাখা হয়েছে। যদিও চীন এগুলোকে ‘উন্মুক্ত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র’হিসাবে উল্লেখ করে থাকে, যা উগ্রবাদ মোকাবেলায় পরিচালিত হয়।

সোমবার মার্কিন বাণিজ্য দফতর প্রকাশিত নথিতে বলা হয়, এই ২৮টি প্রতিষ্ঠান চীনের নিপীড়নের সঙ্গে জড়িত ছিলো। উইঘুর, কাজাখসহ অন্যান্য মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর নজরদারি ও নিপীড়নে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের এই প্রতিষ্ঠানগুলো সহায়তা করেছিল।

প্রসঙ্গত, জিনজিয়াং প্রদেশের জনসংখ্যার ৪৫ শতাংশ উইঘুর মুসলিম। এই প্রদেশটি তিব্বতের মত স্বশাসিত একটি অঞ্চল। বিদেশি মিডিয়ার ওপর এখানে প্রবেশের ব্যাপারে কঠোর বিধিনিষেধ রয়েছে। কিন্তু গত বেশ কয়েক ধরে বিভিন্ন সূত্রে খবর আসছে যে, সেখানে বসবাসরত উইঘুরসহ ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা ব্যাপক হারে আটকের শিকার হচ্ছে।

সূত্র: বিবিসি

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: