শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পানিতে দাঁড়িয়েই কয়রাবাসীর ঈদের নামাজ  » «   ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের রেকর্ড, মৃত্যু ৫০০ ছাড়ালো  » «   ফিনল্যান্ডে ভিন্ন আবহে ঈদ উদযাপন  » «   উপকূলে আমফানের আঘাত  » «   করোনা চিকিৎসায় ইতিবাচক ফলাফল দেখতে পেয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   করোনার টিকা আবিষ্কারের দাবি ইতালির বিজ্ঞানীদের  » «   জেলে করোনা আতঙ্কে প্রিন্সেস বাসমাহ  » «   ঘুষের প্রশ্ন কিভাবে আসে, বললেন ওষুধ প্রশাসনের ডিজি  » «   কিশোরগঞ্জে এবার করোনায় সুস্থ হলেন চিকিৎসক  » «   স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অজ্ঞতাবশত ভুল বলিয়াছে: ডা. জাফরুল্লাহ  » «   বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে  » «   ফ্রান্সে টানা চতুর্থদিন মৃত্যুর রেকর্ড, ৪ হাজার ছাড়াল প্রাণহানি  » «   সিঙ্গাপুরে আরও ১০ বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত  » «   মিশিগানের হাসপাতালে আর রোগী রাখার জায়গা নেই  » «   ৩ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু  » «  

অবৈধভাবে মালয়েশিয়াগামী সাত বাংলাদেশী উদ্ধার



sagorপ্রবাস ডেস্ক :: মিয়ানমারের মেরুল্লা উপকূলের জলসীমার কাছ থেকে রোববার রাত ১২টার দিকে মালয়েশিয়াগামী সাত বাংলাদেশীকে উদ্ধার করেছে বর্ডার গাড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

উদ্ধার হওয়ারা হলেন- চট্রগ্রাম বাঁশখালী আশখরিয়াপাড়া এলাকার মৃত সিদ্ধির আহাম্মদের ছেলে মো. ফারুক, হাটহাজারীর ঘরদোয়ার এলাকার মৃত গোলাপুর রহমানের ছেলে মো. মুছা, পাবনা আমিনপুর বাতিখয়া দক্ষিণ পাড়া এলাকার মো. হালিম উল্লাহর ছেলে মো. শহিদুল ইসলাম, নরসিংদী পাসদুলা কল্যাণপুর এলাকার আফজল আলীর ছেলে মো. জাহিদুল, পলাশ ভাঙ্গাবাজার ডালিমপুর এলাকার মিলন মিয়ার ছেলে মো. শাহীন মিয়া ও জয়পুরহাট ক্যাটনাল ঘরাইল বেলগাড়ী এলাকার সাত্তার ফকিরের ছেলে মো. জসীম উদ্দীন।

বর্ডার র্গাড- ৪২ ব্যাটালিয়ান অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. আবু জার আল জাহিদ জানান, রোববার রাতে মিয়ানমার উপকূলে কয়েক বাংলাদেশী ভাসমান অবস্থায় রয়েছে এমন সংবাদ পেয়ে শাহপরীর দ্বীপ বিওপি চৌকির জওয়ানরা স্থানীয় গরু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় টেকনাফ থেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় প্রায় ১১ ঘণ্টা যাত্রার পর বঙ্গোপসাগরের মিয়ানমার উপকূলের মেরুল্লা চর এলাকার কাছাকাছি পৌঁছে। সেখান থেকে মালয়েশিয়াগামী সাত বাংলাদেশীকে উদ্ধার করা হয়। এদের থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, অবৈধ মানবপাচাররোধে বিজিবর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। পাচাররোধে আগে থেকে উপকূলীয় এলাকায় নতুন ক্যাম্প ও বিভিন্ন এলাকায় টহল জোরদার রাখা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: