বুধবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «   মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত রবার্টকে ক্ষমা করে দিন: চীনকে কানাডা  » «   রাতের অন্ধকারে জিনে আগুন দিচ্ছে বাড়ি ও দোকানে!  » «   কেনিয়ায় জঙ্গি হামলা; মার্কিন নাগরিকসহ নিহত ১৫  » «   সিলেট সিটিতে থাকবে ফ্রি ওয়াইফাই সেবা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   ঐক্যফ্রন্টের সংলাপে আমন্ত্রণ পাবে আ.লীগ-জাপা  » «   অসুস্থতার কারণে আদালতে যাননি খালেদা জিয়া  » «   টিআইবির প্রতিবেদন মনগড়া কল্পকাহিনি : তথ্যমন্ত্রী  » «   উদ্ধার হলো শাহনাজের বাইক, ধরা পড়ল চোর  » «   বিদ্যুতের ঋতুভিত্তিক চাহিদার অবসান ঘটাতে হবে: জ্বালানি উপদেষ্টা  » «   পদ্মা নদীর ওপারেই বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হবে  » «   স্যাটেলাইটে ধরা পড়ল সুন্দরবনের ৪০ একর বন উধাও!  » «   রহস্য খোলাসা করলেন সৌদি থেকে পালিয়ে আসা সেই তরুণী  » «   সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন ফরম কিনলেন তৃতীয় লিঙ্গের ৮ জন  » «   শাস্তির বদলে পদোন্নতি! লেক দূষণ রোধের ৫০ কোটি টাকা নয়ছয়  » «  

৬ মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের নির্দেশ



আগামী ছয় মাসের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ বুধবার (১৭ জানুয়ারি) আদালত এ রায় দেন।

বুধবার (১৭ জানুয়ারি) বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

এর আগে, দেশ সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। আর এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন প্রশ্নে জারি রুল করে আদালত।

মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো: আতাউর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রায় ঘোষণার জন্য বুধবার (১৭ জানুয়ারি) দিনটি ধার্য করেন।

এই রিটের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। অপরদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের পদক্ষেপ নিতে ৩১ শিক্ষার্থীর পক্ষে গত ২০১২ সালের ১১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, প্রক্টর ও ট্রেজারারকে লিগ্যাল নোটিস দেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সেই নোটিসের কোনো জবাব না দেয়ায় ওই বছরই ২৫ জন শিক্ষার্থীর পক্ষে রিট আবেদন করা হয়।

ওই রিট আবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৯৮ সালের ২৭ মে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক এ কে আজাদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে এক সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের পর এর সময়সীমা হবে এক বছর। এরপর পরবর্তী ৩ মাস নির্বাচন না হলে বিদ্যমান কমিটি কাজ চালিয়ে যেতে পারবে। এমন সিদ্ধান্তের পরেই ডাকসু ভেঙে দেওয়া হয়।

ডাকসু বিধান অনুযায়ী, প্রতি বছর নির্বাচন হওয়ার কথা। তবে সেটা হচ্ছে না। সর্বশেষ গত প্রায় ২২ বছর আগে ১৯৯০ সালের ৬ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন হয়।

এতোগুলো বছর পার হয়ে গেলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) কর্তৃপক্ষ ডাকসু নির্বাচনের কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। কর্তৃপক্ষের এই ব্যর্থতার কারণে প্রতি বছর হাজার হাজার শিক্ষার্থী তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

গত বছরের ৮ এপ্রিল হাইকোর্ট নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ডাকসু নির্বাচন করার ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না। তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন। বিবাদী ছিলেন শিক্ষা সচিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার ও প্রক্টর। গত মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) এ বিষয়ে জারি করা রুলের শুনানি শেষ হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: