শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
২৪ ডিসেম্বর মাঠে নামছে সেনাবাহিনী, থাকবেন ম্যাজিস্ট্রেটও  » «   ইন্টারনেটে ধীর গতি ও মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ চায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী  » «   প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি: আদালতের প্রতি খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের অনাস্থা  » «   আওয়ামী লীগ ১৬৮ থেকে ২২০ আসনে জিতবে: জয়  » «   সিলেট-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট  » «   আম্বানি কন্যার বিয়েতে নাচলেন হিলারি ক্লিনটন [ভিডিও ]  » «   সিলেট-১ আসনে ধানের শীষের প্রচারণার একসঙ্গে মুক্তাদির-আরিফ  » «   সহিংসতার ঘটনা খতিয়ে দেখতে সিইসির নির্দেশ  » «   ‘ইডিয়ট’ লিখে গুগলে সার্চ দিলে কেনো আসে ট্রাম্পের ছবি?  » «   বিশ্ব ভ্রমণ করবে বাংলাদেশের প্রথম বিদ্যুৎচালিত গাড়ি  » «   খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি আরব ছাড়পত্র পাবে না: নিক্কি হ্যালি  » «   গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজ খালেদা ও হিরো আলম  » «   আস্থা ভোট, নেতৃত্বের পরীক্ষায় উতরে গেলেন তেরেসা মে  » «   ফোনালাপ ফাঁস: খন্দকার মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ  » «   নির্বাচনে এজেন্ট পাওয়া নিয়ে চিন্তায় বিএনপি  » «  

৫০০ বছর আগে পর্তুগিজরা এসেছিল চট্টগ্রামে



ইউরোপীদের মধ্যে পর্তুগিজরাই সর্বপ্রথম চট্টগ্রামে আসে। পর্তুগিজরা সমুদ্রপথে চট্টগ্রামে আসে ১৫১৮ সালে। সেই হিসাবে আর এক মাস পরেই, ২০১৮ সালে চট্টগ্রামে পর্তুগিজ আগমনের ৫০০ বছর পূর্তি হচ্ছে। অবশ্য চট্টগ্রামে পর্তুগিজ আগমনের স্মৃতি মোটেও সুখের নয়। বরং তাদের সময়কালেকে বলা হয় দস্যুবৃত্তি ও লুটতরাজের কালো অধ্যায়।
যখনকার কথা বলা হচ্ছে, সে আমলে পর্তুগিজ, ডাচ, ফরাসি, দিনেমার, ইংরেজসহ বিভিন্ন ইউরোপীয় ঔপনিবেশিক শক্তি বাংলা ও ভারতের উপকূলে ঘুরঘুর করছিল। কিন্তু তখনো ভারতের কেন্দ্রে দিল্লিতে মুঘল আর বাংলায় শক্তিশালী শাসক থাকায় বহিরাগত শক্তিগুলো তাদের অবস্থান সুদৃঢ় করতে সক্ষম হয় নি। তদুপরি তারা নিজেদের মধ্যে প্রাধান্য বিস্তারেও লিপ্ত থেকেছে।

যদিও পরবর্তীতে ইংরেজরা বাংলা ও ভারতের কর্তৃত্ব লাভ করে এবং অন্যান্য ইউরোপীয় শক্তি আশেপাশের অন্যান্য দেশ দখল করে শাসন-শোষন চালায়, তথাপি আদি শক্তি হিসাবে পর্তুগিজরা আর্থ-সামাজিক- রাজনৈতিক-ধর্মীয় ক্ষেত্রে নানামুখী প্রভাব বিস্তারের চিহ্ণ রেখে গেছে।

লন্ডন ও কলকাতা থেকে ১৯১৯ সালে প্রকাশিত জে.জে.এ. ক্যাম্পস-এর ঐতিহাসিক আকর গ্রন্থ ‘হিস্টরি অব দ্য পর্তুগিজ ইন বেঙ্গল’-এর ভাষ্য মতে, পর্তুগালের রাজা ম্যানুয়েল ১৫১৭ সালে পিরেস দ্য অ্যানড্রেডা নামে একজন নৌ-কাপ্তেনকে বাংলায় বাণিজ্য শুরু করার জন্য পাঠান। কিন্তু এই ব্যক্তি পূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জে ব্যবসায় প্রলুব্ধ হয়ে বাংলায় আর আসেন নি। বরং তিনি পরের বছর, অর্থ্যাৎ ১৫১৮ সালে জোয়াও কোয়েলহো নামে আরেক স্বদেশিকে বাংলায় পাঠান। কোয়েলহো পর্তুগিজদের মধ্যে সর্বপ্রথম চট্টগ্রাম তথা বাংলার এ অঞ্চলে আসেন। একই বছর জোয়াও সিলখেরা নামক আরেকজন পর্তুগিজ ক্যাপ্টেন ব্যবসার উদ্দেশ্যে চারটি খালি জাহাজ নিয়ে চট্টগ্রামের সমুদ্র উপকূলে নোঙর করেন।

চট্টগ্রামে নদী তীরে ইউরোপীয়দের বাংলো। ছবিটি ১৮১৩ সালে কাপ্টেন জর্জ এর অাঁকা। বাংলার শাসকরা যখন শক্তিশালী ছিল, তখন বহিরাগত পর্তুগিজরা এখানে মোটেও সুবিধা করতে পারে নি। কালক্রমে শাসকের অবক্ষয়ের সুযোগে তারা এ অঞ্চলে বলপ্রয়োগের সুযোগ পায় ।বাংলায় আগমনের প্রথম প্রথম

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: