বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
৪০ কিমি হেঁটে স্কুলে যেতেন মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার!  » «   পশ্চিমবঙ্গে আবারও সরকার গঠনের পথে মমতা  » «   ভোট গণনা শুরু, বড় ব্যবধানে এগিয়ে বিজেপি  » «   খালেদা জিয়ার সুবিধার্থে কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপনের সিদ্ধান্ত: তথ্যমন্ত্রী  » «   বুথফেরত জরিপের ফলেই ‘বিজয়োৎসব’ শুরু বিজেপির  » «   হুতি বিদ্রোহীদের হামলা, সৌদির পাশে থাকবে পাকিস্তান  » «   ধানক্ষেতে আগুনের ঘটনা তদন্তে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ  » «   মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ছে  » «   বালিশ দুর্নীতি: নির্বাহী প্রকৌশলী প্রত্যাহার  » «   এফআর টাওয়ার নির্মাণে ত্রুটি, তদন্ত প্রতিবেদনে দোষী ৬৭ জন  » «   ক্ষতিপূরণ দিতে গ্রিনলাইনকে আদালতের আল্টিমেটাম  » «   প্রখ্যাত তিন ইসলামি স্কলারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করছে সৌদি  » «   মৌলভীবাজারে কে এই ‘পীর’ আজাদ?  » «   ৮০ বছরের মধ্যে সাগরে ডুবে যাবে বাংলাদেশ!  » «   অনলাইনে ট্রেনের টিকিট: বিক্রি শুরুর আগেই টিকিট শেষ!  » «  

৩ মাসেও মিলেনি কোনো তথ্যধর্ষণের পর সদ্য ভূমিষ্ট নবজাতক ও মাকে খুন



নিউজ ডেস্ক::কুমিল্লার লাকসাম মুদাফরগঞ্জের আলী নোয়াব উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে নবম শ্রেণি ছাত্রী শারমিন আক্তার রিয়া (১৬)কে গত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭ইং তারিখ রাতে বাড়ি থেকে অপহরণ করে ধর্ষণ, নবজাতক শিশু ভূমিষ্টের পর হত্যা করে লাশ উপজেলার ১নং বাকই দক্ষিণ ইউনিয়নের কোঁয়ার পশ্চিমপাড়া গ্রামের মসজিদের ময়লার সেপটিক ট্যাংকির ভিতর ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ইং তারিখ নিহত স্কুল ছাত্রীর পিতা রুস্তুম আলী লাকসাম থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলেও দীর্ঘ ৩ মাসেও আসামীদের গ্রেফতার ও মামলার ক্লু বের করতে পারেনি বলে স্বজনদের অভিযোগ।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়- জেলার লাকসাম উপজেলার উপজেলার ১নং বাকই দক্ষিণ ইউনিয়নের কোঁয়ার গ্রামের রুস্তুম আলীর কন্যা মুদাফরগঞ্জ আলী নোয়াব উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে নবম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী শারমিন আক্তার রিয়া (১৬) গত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭ইং তারিখ তার ছোট বোন আক্তার (১১)সহ নিজ বাড়িতে ঘুমিয়েছিল।

ওই দিন রাত ২টার সময় রিয়াকে ঘরের বাহির কে বা কারা ডাকতে থাকে। এ সময় রিয়া ডাকের সারা দিতে গিয়ে বাড়ির থেকে বের হলে ওই দিন রাত বাড়িতে না যাওয়ায় তার স্বজনরা অনেক খোঁজাখুজি করতে থাকে। পরে গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ইং তারিখ রুস্তুম আলী মেয়েকে না পেয়ে লাকসাম থানায় যাওয়ার পথিমধ্যে কোয়ার নুরানী কোরআন হাফেজিয়া মাদ্রাসার সংলগ্ন পশ্চিম পার্শ্বে সেলপটি ট্যাংকির ভিতর থেকে বস্তাবন্দি গলিত লাশের পা দেখতে পেয়ে তাকে খবর দেয়।

পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে রুস্তম আলী তার কন্যা রিয়ার লাশ বলে সনাক্ত করে। এ সময় রিয়ার গলায় ওড়না দ্বারা ফাঁস লাগানো এবং যৌনাঙ্গ দিয়ে ভূমিষ্ট প্রায় একটি নবজাতক মৃত শিশু দেখতে পায়। পরে লাকসাম থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা রুস্তুম আলী লাকসাম থানায় গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ইং তারিখ নারী ও শিশু দমন আইন ২০০০ সংশোধনী ২০০৩ এর ৯ (১)/৩০, ধর্ষণ, গর্ভপাত করা গর্ভজাত শিশু ভূমিষ্ট হওয়ার বাধা প্রদান করে একই উদ্দেশ্যে হত্যা করে লাশ গুম করার অপরাধে মামলা দায়ের করে। তবে, মামলা দায়েরের ৩ মাসেও পুলিশ কোন আসামী এবং ক্লু বের করতে পারেনি।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা রুস্তুম আলী জানান, ঘটনার দিন আমি আমার শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলাম। বাড়ি ফাঁকা থাকায় দুর্বৃত্তরা সুযোগটি কাজে লাগিয়ে আমার মেয়েকে ঘর থেকে বের নিয়ে হত্যা করে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: