বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
৪০ কিমি হেঁটে স্কুলে যেতেন মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার!  » «   পশ্চিমবঙ্গে আবারও সরকার গঠনের পথে মমতা  » «   ভোট গণনা শুরু, বড় ব্যবধানে এগিয়ে বিজেপি  » «   খালেদা জিয়ার সুবিধার্থে কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপনের সিদ্ধান্ত: তথ্যমন্ত্রী  » «   বুথফেরত জরিপের ফলেই ‘বিজয়োৎসব’ শুরু বিজেপির  » «   হুতি বিদ্রোহীদের হামলা, সৌদির পাশে থাকবে পাকিস্তান  » «   ধানক্ষেতে আগুনের ঘটনা তদন্তে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ  » «   মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ছে  » «   বালিশ দুর্নীতি: নির্বাহী প্রকৌশলী প্রত্যাহার  » «   এফআর টাওয়ার নির্মাণে ত্রুটি, তদন্ত প্রতিবেদনে দোষী ৬৭ জন  » «   ক্ষতিপূরণ দিতে গ্রিনলাইনকে আদালতের আল্টিমেটাম  » «   প্রখ্যাত তিন ইসলামি স্কলারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করছে সৌদি  » «   মৌলভীবাজারে কে এই ‘পীর’ আজাদ?  » «   ৮০ বছরের মধ্যে সাগরে ডুবে যাবে বাংলাদেশ!  » «   অনলাইনে ট্রেনের টিকিট: বিক্রি শুরুর আগেই টিকিট শেষ!  » «  

৩২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করতেই ‘গুম’ নাটক



rab-2-sm20160422184842নিউজ ডেস্ক: কোম্পানির ৩২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করতেই ‘গুম’ নাটক করেন অ্যাডভোকেট পলাশ কুমার রায়। আর সেই গুম নাটকে সার্বিক সহযোগিতা করেন তার মা মিনা রানী রায়।

শুক্রবার (২২ এপ্রিল) বিকেলে ৠাব-২ এর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদ।

মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, কোহিনূর কেমিক্যাল কোম্পানিতে আইন বিভাগে জুনিয়র এক্সিকিউটিভ পলাশ কুমার রায় পাওনাদারদের দেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে ৩৫ লাখ টাকা তোলেন। পরে কয়েকজন দেনাদারকে ৩ লাখ ৯২ হাজার ৫শ’ টাকা দেনা পরিশোধ করে বাকি টাকা নিয়ে আত্মগোপন করেন পলাশ।

কোহিনূর কেমিক্যালের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, তার কাছে কোম্পানির গুরুত্বপূর্ণ অনেক দলিলাদি ও নথিপত্র রয়েছে এবং তিনি বিভিন্ন পাওনাদার প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিদের দেওয়ার জন্য যে টাকা গ্রহণ করেছেন তা থেকে ৩১ লাখ ৭ হাজার ৫শ’ টাকার হিসাবে গড়মিল পাওয়া যায়।

এরপর থেকে পলাশ কুমার রায় স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে যান। পলাশ কুমার রায় গুম হয়েছেন দাবি করে ৩০ মার্চ তার মা মিনা রানী রায় রমনা থানায় একটি জিডি করেন। ছেলেকে জীবিত অথবা মৃত অবস্থায় ফিরে পেতে ৪ এপ্রিল তিনি মহানগর মুখ্য হাকিমের কাছে একটি লিখিত আবেদন করেন, বলেন ৠাব-২ এর অধিনায়ক।

তিনি আরো বলেন, মিডিয়ার মাধ্যমে এ ঘটনা ৠাবের নজরে আসলে ৠাব ঘটনাটির রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামে। পরে শুক্রবার ভোরে অ্যাডভোকেট পলাশ কুমার রায়কে তেজগাঁওয়ের তেজকুনি পাড়ার একটি বাসা থেকে আটক করে ৠাব ২।

কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, পলাশ গুম হয়েছেন এমন দাবি করা হলেও সার্বক্ষণিক মায়ের সঙ্গে তার মোবাইলে যোগযোগ ছিলো। এ ঘটনায় মা মিনা রানীর কোনো সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাকেও গ্রেফতার করা হবে বলেও জানান তিনি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: