শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
এসএসসি ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি, নির্বিকার প্রশাসন  » «   স্টেশন মাস্টারের ভুলে ৮ বগি লাইনচ্যুত, উত্তরবঙ্গে রেল-সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন  » «   বিন লাদেনকে পাকিস্তানের হিরো বললেন পারভেজ মোশাররফ  » «   রোববার প্রাথমিক-ইবতেদায়ী সমাপনী শুরু, পরীক্ষার্থী কমেছে  » «   ধড়পাকড়ে স্বপ্ন এখন দুঃস্বপ্ন, ফিরলেন আরও ২১৫ কর্মী  » «   বাবরি মসজিদ ইস্যু: সিলেটে শুক্রবার বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম  » «   খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে ১৪০১ পৃষ্ঠার আপিল আবেদন  » «   ব্রিটেনে বিতর্কিত টু চাইল্ড লিমিট আইন বাতিলের আবেদন  » «   পিকেএসএফ উন্নয়ন মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী  » «   মির্জা ফখরুলের বিরুদ্ধে মামলা করলেন বিএনপির ২ নেতা  » «   লন্ডন-আমেরিকার চাইতেও বাংলাদেশে পেঁয়াজের দাম বেশী  » «   পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আগুন  » «   ধাপে ধাপে জরিমানা নেবে ট্রাফিক পুলিশ  » «   আগামীকাল থেকে আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে ওয়াজ মাহফিল শুরু  » «   ঘরের ছেলে ঘরে ফিরেছে: ইনাম চৌধুরী প্রসঙ্গে মিসবাহ সিরাজ  » «  

২৯ রোহিঙ্গা মিয়ানমারে ফিরেছে, জানেই না বাংলাদেশ



নিউজ ডেস্ক:: বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ২৯ রোহিঙ্গা স্বেচ্ছায় নিজ দেশ মিয়ানমারে ফিরে গেছে বলে দাবি করেছে দেশটির ঢাকার দূতাবাস। মঙ্গলবার মিয়ানমারের দূতাবাসের ফেসবুক পেজে ওই রোহিঙ্গাদের ছবিসহ একটি পোস্ট দেয়া হয়। তবে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, এ সম্পর্কে কিছুই জানে না বাংলাদেশ। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন হলে তা দুই দেশের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতেই হবে।

মিয়ানমার দূতাবাসের ফেসবুক পেজে জানানো দেশটির তাং পিয়ানো লেটো রিসেপশন সেন্টারের মাধ্যমে মিয়ানমারে বাংলাদেশ থেকে তারা ফিরেছেন। এ সময় দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাদের অভিবাদন জানান।

মিয়ানমারের দাবি, এ পর্যন্ত ৩৫১ রোহিঙ্গা স্বেচ্ছায় নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করেছে।যারা ফিরে গেছে তারা মিয়ানমারে ক্যাম্পে বসবাস করছে জানিয়ে দূতাবাস জানিয়েছে বাংলাদেশ থেকে আরও অনেকেই ফিরে যেতে চায়। মিয়ানমার দূতাবাস জানায়, স্বেচ্ছায় ফিরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের প্রতিমাসে চাল, রান্নার তেল এবং খাবার দেয়া হচ্ছে।

ফেসবুকের ওই পোস্টে আরও বলা হয়, মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিরাপদ, মসৃণ ও স্থায়ী করতে বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সব সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে, যা জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে হবে।

উল্লেখ্য, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর দেশটির রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়ার বিভিন্ন শিবিরে আশ্রয় নেয়। বর্তমানে বাংলাদেশ ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার আশ্রয়দাতা। বারবার প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও তাদের ফেরত নিচ্ছে না মিয়ানমার।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: