শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে নির্মাণ হতে যাচ্ছে স্মৃতিসৌধ,পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটার  » «   সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশের ১০ ধাপ অবনতি  » «   জাফর ইকবালকে হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু  » «   আইডিয়া’র ২৫ বছর পূর্তি উৎসবে র‍্যালি, আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান  » «   উন্নয়ন করতে গিয়ে জীবন ও জীবিকার যেন ক্ষতি না হয় : প্রধানমন্ত্রী  » «   আজ দিন রাত সমান, আকাশে থাকবে সুপারমুন  » «   সহকর্মীর হাতে খুন হলেন তিন ভারতীয় সেনা  » «   মসজিদে হামলাধারী ব্রেন্টন আইএস থেকে ভিন্ন কিছু নয়: এরদোগান  » «   সিলেটে মেশিনে আদায় হবে যানবাহনের মামলার জরিমানা  » «   গ্যাসের দাম ১৩২% বৃদ্ধির প্রস্তাব হাস্যকর  » «   মেয়রের আশ্বাসে ২৮ মার্চ পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত  » «   দরিদ্র বলে এদেশে কিছু থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী  » «   এক সপ্তাহের মধ্যে আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ  » «   গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশি ওমরের মুখে মসজিদে হামলার লোমহর্ষক বর্ননা…  » «   আজ প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী,আ. লীগের শ্রদ্ধা  » «  

১৯ বছর ধরে সাঁতরেই স্কুলে যাচ্ছেন শিক্ষক আব্দুল মালিক



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: প্রতিদিন সকাল ৯ টায় কোমরে টিউব জড়িয়ে সাঁতরে নদী পার হচ্ছেন একজন মানুষ, হাতে উঁচু করে ধরা একটি ব্যাগে তার কাপড়চোপড় আর জুতা। ভারতের কেরালা রাজ্যের মালাপুরাম গ্রামের কাদালুন্দিপুঝা নদীতে এটা এক পরিচিত দৃশ্য। দীর্ঘ ১৯ বছর ধরে ওই ব্যক্তি একইভাবে একই সময়ে সাঁতরে পার হচ্ছেন নদী। তার নাম আব্দুল মালিক।তিনি কেরালার মুসলিম লোয়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অংকের শিক্ষক।

জানা গেছে, চাকরির শুরু থেকে আজ পর্যন্ত একদিনও আব্দুল মালিক স্কুল বাদ দেননি । দরিদ্র পরিবারের ছেলে মালিক শিক্ষক হিসাবে তার কাজ শুরু করেন ১৯৯৩ সালে। তার বাড়ি থেকে স্কুলের দুরত্ব ১২ কিলোমিটার। বাড়ি থেকে তার স্কুলে যাওয়ার দু’টি রাস্তা রয়েছে। একটি বাড়ি থেকে বেরিয়ে দু’বার বাস বদল করতে হবে। তারপর আবার হাঁটা পথ।

আর একটি পথে বাড়ি থেকে ১০ মিনিটের হাঁটা পথে স্থানীয় কাদালুন্দিপুঝা নদীর পাড়ে যেতে হয়। এর পর সেই নদী সাঁতরে ওপারে উঠে হাঁটতে হয় অল্প কিছু পথ। তাহলে পৌঁছানো যায় কর্মস্থলে। প্রথমদিকে মালিক বাসে করে স্কুলে যেতেন। একদিন তার স্কুলের অন্য এক শিক্ষকের পরামর্শে নদী পথেই কর্মস্থলে যাওয়ার সহজ পথটা বেছে নেন তিনি। আব্দুল জানান, গাড়িতে যেতে হলে বেশির ভাগ দিনই নির্দিষ্ট সময়ে স্কুলে পৌঁছানো যায় না।এতে তার প্রচুর সময়ও ব্যয় হয়।

স্কুলে পৌঁছাতে নদীর পাড়ে এসে প্রথমে তিনি তার পড়নের কাপড় বদলে তোয়ালে পড়েন। আর কাপড়গুলো ভরেন প্লাস্টিকের ব্যাগে। কোমড়ে টিউব জড়িয়ে এক হাতে ধরা থাকে তার জুতা, কাপড় চোপড়ের প্লাস্টিক ব্যাগ আর অন্য হাত দিয়ে সাঁতার কাটেন তিনি।

১৯ বছর ধরে এই নিয়মই চলে আসছে। এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যে অন্য কোনও পেশা বা অন্য কোনও স্কুলে যাওয়ার চেষ্টাও করেননি আব্দুল। তিনি জানান, শিক্ষকতা করে তিনি যে বেতন পান তা নিয়েই তিনি খুশী। এত বছর পর অনেকেই মালিককে বলেন, আপনি এখন আর যুবক নন। তাহলে কেন এত কষ্ট করে এভাবে প্রতিদিন সাঁতার কেটে নদী পার হচ্ছেন? এ বিষয়ে মালিকের উত্তর হল, ‘প্রতিদিন সাঁতার কাটলে নিজেকে অনেক ঝরঝরে এবং শক্তিশালী মনে হয়। আমি ঠিক করেছি, অবসর নেওয়ার আগ পর্যন্ত এভাবেই প্রতিদিন সাঁতার কাটবো’।

সূত্র : জি নিউজ

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: