শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
আফগানিস্তানে হাসপাতালে ভয়াবহ হামলা, নিহত ২০  » «   রাজনীতিতে যোগ দেবেন নুর, জানালেন দলের নাম  » «   নারায়ণগঞ্জে একই পরিবারের ৩ জনকে গলা কেটে হত্যা  » «   মোদিকে আকাশপথ ব্যবহারের অনুমতি দিলোনা পাকিস্তান  » «   ৮ ভোটে হেরে গেলেন ছাত্রদলের সেই শ্রাবণ  » «   সিলেটের ৬ জনসহ বদলি হলেন ৫৩ বিচারক  » «   ক্যাসিনোর টাকার ভাগ কে কে পেতেন, নাম বলছেন খালেদ  » «   অমর নায়ক সালমানের জন্মবার্ষিকী আজ  » «   ছাত্রদলের সভাপতি খোকন, সাধারণ সম্পাদক শ্যামল  » «   মাদরাসা ছাত্রীকে জিনে নিয়ে গেছে!  » «   রোহিঙ্গাদের এনআইডি বানিয়ে দিয়ে কোটিপতি!  » «   প্রধানমন্ত্রীর পদ হারাচ্ছেন নেতানিয়াহু!  » «   ৬০ নম্বরের পরীক্ষা দিয়ে হতে হবে ছাত্রলীগ নেতা  » «   মিয়ানমার তাদের লোকদের ফেরত নিতে রাজি হয়েছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   রাজশাহীতে মা-ছেলে হত্যায় আ.লীগ নেতাসহ ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড  » «  

১৬ বছর সৌদিতে থেকে পরিবারের ভরণপোষণ, বিনিময়ে দেশে এসে লাশ!



নিউজ ডেস্ক:: দীর্ঘ ১৬ বছর সৌদিতে ছিলেন আক্তার আখন এবং প্রবাসের সকল টাকা পয়সা নিজ মায়ের নামে পাঠাতেন, পরিবারের সকল খরচ আক্তারের উপর ছিলো। ছোট ভাইদের বিদেশে পাঠানো বাপের ভিটায় নিজের টাকা খরচ করে একটি পাকা ঘর ও করেছিলেন, কিন্তু এক বছর আগে আক্তার আখন যখন সৌদি থেকে খালি হাতে বাড়ীতে ফিরে তখনি নেমে আসে আক্তারের জীবনে দুঃখ।

তার অন্য ভাই বোনরা তাকে পাকা ঘরে যায়গা দেয়নি, দুই চালা একটি টিনের পুরানো ঘরে আক্তারকে বউ বাচ্চা নিয়ে আলাদা করে দেওয়া হয়। আর তখনি আক্তার নিজের টাকার হিসেব চাইতে গেলে ঝগড়ার সৃষ্টি, কে জানতো ১৬ বছর বিদেশে কাটিয়ে এসে আক্তারকে বাজারে বাজারে ধনিয়া পাতা,কলমির শাক বিক্রি করে নিজের সংসার চালাতে হবে, এমন সব কষ্ট বুকে নিয়ে প্রতিদিনি আক্তারের পরিবারে ঝগড়া এবং মারামারির মত ঘটনা ঘটতো।

আক্তার আখনের খুনের আগের দিন তার স্ত্রী তার দুই সন্তান নিয়ে তার বাপের বাড়িতে ঈদের পোশাক কেনা কেটার টাকা ভাইদের কাছ থেকে আনতে গেলে, আক্তার আখনের বাড়ীতে পূর্বের মত ঝগড়া হয় এবং সেই রাতেই আক্তার আখনকে হত্যা করে গাছের সাথে ঝুলিয়ে রাখে। তার স্ত্রী জানায় আক্তার আখনের একটি বিচি গলিত অবস্থায় ছিলো এবং আক্তার আখনের লাশ যখন নিছে নামানো হয় তখন তার হাতে মহিলাদের চুল ছিলো। তাছাড়া আক্তার আখনের শরীরের পা বেয়ে রক্ত ঝড়ার ছবি ও ইতিমধ্যে প্রকাশ পেয়েছে।

জানা যায় আক্তার আখনের মৃত্যুর ঘটনার দিন আক্তার আখনের মা,ভাই ভাবিসহ কেউই বাড়িতে ছিলোনা,তাকে হত্যার পর তারা আক্তার আখনের স্ত্রী কে ফোন করে বলে রাতের ঝগড়ার পর আক্তারের কোন খোঁজ মিলেনি, তাই আক্তার আখনের স্ত্রী তার স্বামীর বাড়িতে এসে খোঁজতে গিয়ে তাদের পুনরায় কল করলে তারা বলে বাড়ির আশেপাশে বাগিচায় খোঁজার কথা পরে আক্তার আখনের লাশ তার স্ত্রীর চোখে পড়লে তার চিৎকারে গ্রাম বাসী জড়ো হয়।

এমন একটি ঘটনা এতদিন হয়ে গেলেও হাইমচর থানায় মামলা নেয়নি,তার স্ত্রীর অসহায় হয়ে নেতাদের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছে কেউই তাকে ভরসা দেয়নি। আক্তার আখনের স্ত্রী জানায় চাঁদপুর এসপি অফিসে গেলেও সেখানে তাকে বলা হয় হাইমচর থানা মামলা না নিলে তাদের করার কিছু নেই।

হাইমচরে কোন ঘটনা ঘটলে সাংবাদিকদের গরমে টিকা যায়না কিন্তু সেই সাংবাদিকরা ও নিরবতার ভুমিকা পালন করছে। আক্তার আখনের লাশ মাটি দিয়ে পেললেও এখনো তার মেডিকেল রিপোর্ট দেওয়া হয়নি আক্তার আখনের স্ত্রী কে, ঘটনার ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও হাইমচর থানা পুলিশের কোন তৎপরতা দেখা যাচ্ছেনা সত্য উন্মোচন এবং মামলা গ্রহনের।

আক্তার আখনের স্ত্রীর অভিযোগ তার শাশুড়ী তফুরির নেছা এবং দেবর শাহপরান ও আরেক দেবর মধুর স্ত্রী ববিতা কে গ্রেফতার করলেই ঘটনার আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: