মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বুধবার সিলেটে সংস্কারকৃত শিশু আদালতের উদ্বোধন  » «   আজ হবিগঞ্জের লাখাই কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস  » «   বুধবার মৌলভীবাজারে অর্ধদিবস হরতালের ডাক, প্রতিহতের ঘোষণা আ. লীগের  » «   গোলাপগঞ্জ পৌরসভা মেয়র উপ-নির্বাচন: প্রতীক বরাদ্দ আজ  » «   কারগারে মালির কাজ করছেন রাগীব আলী, ডিভিশনের আবেদন  » «   ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ১০ অক্টোবর  » «   কোটা ইস্যুতে আন্দোলনকারী ও ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি মিছিল  » «   আশুরা উপলক্ষে সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই: ডিএমপি কমিশনার  » «   একনেকে অনুমোদন পেলো ইভিএম কেনা প্রকল্প  » «   জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে রিট  » «   ৫৬৮ কেজির লাড্ডু দিয়ে পালিত হল মোদির জন্মদিন  » «   দেশের সব নাগরিককে অধিকার রক্ষায় সক্রিয় হতে হবে-ড. কামাল  » «   ঐতিহাসিক পিয়ংইয়ং সফরে সস্ত্রীক প্রেসিডেন্ট মুন  » «   ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭.৮৬%  » «   মাদরাসা শিক্ষকের স্ত্রী ও ছাত্রকে গলাকেটে হত্যা  » «  

১৪৪ ধারা জারি নিজ নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ করতে পারলেন না ফখরুল!



নিউজ ডেস্ক::ঠাকুরগাঁওয়ের সদর উপজেলার রুহিয়া থানার চারটি এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করার কারণে পূর্বনির্ধারিত গণসংযোগ করতে পারেননি বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ১৪৪ ধারা জারির আওতাভুক্ত এলাকা মির্জা ফখরুলের নির্বাচনী এলাকা। সেখানে আজ তাঁর গণসংযোগ করার কথা ছিল।

রুহিয়া থানা বিএনপি ও আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ একই স্থানে পৃথক কর্মসূচি দেওয়ায় রুহিয়া চৌরাস্তা, রামনাথ বাজার, ভেলারহাট, পাটিয়াডাঙ্গী বাজার, ঢোলরহাট ও আশপাশের এলাকায় শনিবার (৬ জানুয়ারি) সকাল ১০টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করে প্রশাসন। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা ১৪৪ ধারা জারির নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ করার জন্য শনিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রুহিয়া থানার চারটি স্থানে কর্মসূচি দিয়েছিলেন মির্জা ফখরুল। রুহিয়া থানা বিএনপি গণসংযোগের ঘোষণা দিয়েছিল। এর পাশাপাশি বর্তমান সরকারের চার বছর পূর্তি উপলক্ষে রুহিয়া থানার ৫টি ইউনিয়নে আনন্দ-শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভার ঘোষণা দেয় থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ আসলাম মোল্লা বলেন, একই দিনে স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও বিএনপির পক্ষ থেকে পৃথক কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়ায় সংঘর্ষ এড়াতে ওই এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়।

রুহিয়া থানা বিএনপির আহ্বায়ক আনসারুল ইসলাম বলেন, মহাসচিবের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিকে বাধাগ্রস্ত করতে আওয়ামী লীগ ভীত হয়ে পাল্টা কর্মসূচি দিয়ে প্রশাসনকে ১৪৪ ধারা জারি করতে বাধ্য করেছে।

রুহিয়া থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রশিদ হারুন বলেন, ‘বর্তমান সরকারের উন্নয়নের কথা ছড়িয়ে দিতে পাঁচটি স্থানে সভা ডেকেছিলাম। গণসংযোগের নামে এলাকায় অরাজকতা সৃষ্টি করতে বিএনপিও ওই সব স্থানে কর্মী জমায়েতের ঘোষণা দেয়। কিন্তু বিএনপির কারণে ১৪৪ ধারা জারি করায় আমরা কর্মসূচি স্থগিত করেছি।’

রুহিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায় বলেন, এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।

এদিকে মহাসচিব মির্জা ফখরুলের গণসংযোগ কর্মসূচি পণ্ড হওয়ায় শনিবার দুপুরে দলীয় কার্যালয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা বিএনপি সংবাদ সম্মেলন করে। সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, ২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনের চার বছর পর বিএনপির মহাসচিব তাঁর নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগের কর্মসূচি দেন। কিন্তু প্রশাসন এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করে এই কর্মসূচি বন্ধ করে দেয়। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আজকের কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে বিএনপির কর্মসূচিতে বাধা দেওয়ার চেষ্টা হলে তা প্রতিহত করা হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: