মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

হাতিয়ায় যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা



Noakhali-sm20160410204844নিউজ ডেস্ক: নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী মেরিনা বেগমকে (২৫) স্বামী নুরনবী পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোববার (১০ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার চরকিং ইউনিয়নের শুল্লুকিয়া গ্রামে এ হত্যার ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, তিন বছর আগে হাতিয়া পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের আলাম বলী বাড়ির রুহুল আমিনের মেয়ে মেরিনা বেগমের সঙ্গে একই গ্রামের তালুক মিয়ার ছেলে নুর নবীর বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকেই নুর নবী বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক হিসেবে টাকা এনে দেওয়ার জন্য মেরিনাকে বিভিন্ন সময় চাপ দিতে থাকেন। গত বছর রুহুল আমিন তার মেয়ের কান্নাকাটি দেখে যৌতুক হিসেবে ২০ হাজার টাকা দেন।

মেরিনার বাবা রুহুল আমিন বলেন, কয়েক মাস থেকে নুর নবী আবারো ২০ হাজার টাকা যৌতুক দাবি করেন। যৌতুকের টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় এক মাস আগে নুর নবী আমার মেয়েকে বেদম মারধর করেন।

এসময় মেরিনা তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা থাকায় তার গর্ভের বাচ্চাটি নষ্ট হয়ে যায়। অনেক টাকা খরচ করে মেরিনাকে চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ করা হয়।

রোববার দুপুরে নুর নবী ও তার মা মেরিনাকে আবারও বেদম মারধর করেন। তারা প্রথমে মেরিনাকে পিটিয়ে ও পেটে লাথি মেরে রান্না ঘরের মেঝেতে ফেলে দেয়। একপর্যায়ে গলায় শাড়ি পেঁচিয়ে তাকে হত্যা করে। পরে নুরনবীসহ পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়।

পার্শ্ববর্তী বাড়ির প্রতিবেশী এক নারী বিকেলে রান্না ঘরের মেঝেতে মেরিনার মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সন্ধ্যায় নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

হাতিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইমাম হোসেন জানান, নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে। ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে। এ বিষয়ে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: